ব্রেকিং নিউজ

আজ খুশির ঈদ, জাতীয় ঈদগাহে লাখো মুসুল্লির ঈদের নামাজ আদায়

Eid

প্রতিবেদক:

বছর ঘুরে আবার এসেছে ঈদুল ফিতর। এক মাস সিয়াম সাধনার পর সোমবার সৌহার্দ্যের বার্তা ছড়িয়ে দিয়ে ঈদের আনন্দে মেতে উঠেছে সারা দেশ।সন্ধ্যার আকাশে একপলক চাঁদের দেখা মিলতেই কোটি প্রাণে অন্যরকম এক স্পন্দন ছুঁয়ে গেছে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের আকাশে সেই চাঁদ উঠে। পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ। আজ সোমবার উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদুল ফিতর।
গতকাল রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির উদ্যোগে ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সভা শেষে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হয়। ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।

একমাস সিয়াম সাধনার পর এলো খুশির ঈদ। আজ শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় বাংলাদেশের ঘরে ঘরে আনন্দের বন্যা বইছে। যদিও সৌদিসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে আজ ঈদ হওয়ায় বাংলাদেশে সোমবার ঈদ হওয়ার সম্ভাবনা আগে থেকেই ছিল। কিন্তু তবুও চাঁদ দেখার অপেক্ষায় ছিল একমাস সিয়াম সাধনায় মগ্ন মুসলমানেরা।

সোমবার সকাল ৭টায় ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে। আর প্রধান জামাতটি জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নিরাপত্তা তল্লাশি আর সতর্ক পাহারা পেরিয়ে সকালেই জাতীয় ঈদগাহ কানায় কানায় ভরে যায়৷ সকাল ঠিক ৮ টায় শুরু হয় ঈদের জামাত৷ সাধারণ মানুষের সাথে এক কাতারে ঈদের নামাজ পড়েন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হমিদ, মন্ত্রী পরিষদের সদস্যবর্গ, ঢাকার মেয়র৷
নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ জাতি ও মুসলিম বিশ্বের জন্য শান্তি এবং সমৃদ্ধি কামনা করেন সমবেত মুসল্লিরা৷ মোনাজাতের পর একে অন্যের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন, করেন কোলাকুলি৷ নামাজের পর ঈদগাহ সৃষ্টি হয় এক মিলন মেলায়৷ শুভেচ্ছা বিনিময় আর একে অপরের কল্যাণ কামনায় ত্যাগের আদর্শে যেন নিজেকে বিলিয়ে দেয়া৷ শিশুরাও শামিল ছিল তাতে৷

ঈদে নিরাপত্তার বিষয়টিকে প্রাধান্য দিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। রাজধানীর নিরাপত্তায় পুলিশ, র‌্যাব ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে মাঠে আছে আনসার স্ট্রাইকিং ফোর্স।

গত বছর ঈদুল ফিতরের এক সপ্তাহ আগে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় ১৭ বিদেশিসহ ২২ জন নিহত হন। আর ঈদের দিন সকালে শোলাকিয়ায় দেশের সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে পুলিশ চৌকিতে জঙ্গি হামলায় নিহত হন এক নারীসহ চারজন।

Comments

comments