ব্রেকিং নিউজ

একটি বিশেষ দলকে সুবিধা দিতেই বাংলাদেশ ক্রিকেটের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র–খালেদ মাসুদ পাইলট

khaled-masud-thebdexpress

দ্য বিডি এক্সপ্রেস.কমঃ

বাংলাদেশের পেসার তাসকিন আহমেদ ও স্পিনার আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন ওঠার পর আইসিসি ইতোমধ্যে পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলেছে। আরাফাত সানি আজই চেন্নাই যাচ্ছেন এবং এরপর তাসকিন যাবেন। বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে আইসিসির এই ধরনের সিন্ধান্তকে পক্ষপাত বলে মনে করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট। তাসকিন ও সানির এই পরীক্ষা কতটা চাপে ফেলবে বাংলাদেশকে? বিবিসি বাংলার এমন প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট বলেন, আমার কাছে মনে হয় আম্পায়ারদের যে সিন্ধান্ত সেটা নেওয়ার অধিকার আছে। কিন্তু এটাও ঠিক এই মুহূর্তে বিশ্বকাপের মতো আসর কিংবা বড় বড় আসরে এই ধরনের সিন্ধান্ত নেওয়া খুবই অযৌক্তিক। একটা খেলোয়াড় যখন তার জায়গা প্রতিষ্ঠিত করে তখন তাকে নিয়েও দলের মধ্যে আস্থা বেড়ে যায়। একটা খেলোয়াড় তৈরি করতে অনেক সময়, অনেক পরিশ্রম করতে হয়। আমি মনে করি এইটা একটা ভুল সিদ্ধান্ত। বিশ্ব ক্রিকেটে এ রকম অনেকবারই অনেক সময় হয়েছে। হয়তো কোনো কোনো দলের স্বার্থে অনেক সময় দেখা যায় কিছু সুবিধা দেওয়ার জন্য আইসিসি হয়তো দেখেও না দেখার ভান করে। অনেক সময় দেখা যায় আইসিসি তাদের ক্ষমতার অপব্যবহার করতে চায়।

খালেদ মাসুদ আরও বলেন, তাসকিন এবং আরাফাত সানি অনেক দিন ধরেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন। তাদের অভিষেক ম্যাচে নিশ্চয়ই কোনো আম্পায়ার ছিলেন অথবা ম্যাচ রেফারি ছিলেন তারা নিশ্চয়ই স্বাগতিক আম্পায়ার ছিলেন না। সেখানে যদি আম্পায়াররা তাদের বোলিংয়ে চাকিংয়ের সন্দেহ প্রকাশ করতেন তাহলে তারা তাদের বোলিং অ্যাকশন শুধরে নিতে পারতেন। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে এটা বিশ্বকাপের ইভেন্ট এখানে অনেক মানসিক ব্যাপার থাকে। কোনো একটা টিমে কোনো একক খেলোয়াড়কে নিয়ে যদি এ রকম একটা কেস নিয়ে আসেন তাহলে ওই টিমের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। এক প্রকার একটা চাপ বাংলাদেশ দলের মধ্যে পড়বে। আমার মনে শুধু বাংলাদেশ দল না এ রকম একটা সমস্যা হলে যেকোনো দলই চাপের মধ্যে পড়বে। তাসকিন যেহেতু ভালো বল করছে, সানিও ভালো বল করছে এই সমস্যার কারণে একটা বড় গ্যাপ তৈরি হবে। বিশ্বকাপের মতো জায়গায় এসে কিসের পরীক্ষা। তার জন্য অনেক সময় ছিল সেখানে এটা করতে পারত।

ওমানের সঙ্গে পরের ম্যাচে তাসকিন ও সানির অনুপস্থিতি বাংলাদেশকে কোনো চাপে ফেলবে কিনা এর উত্তরে খালেদ মাসুদ বলেন, বাংলাদেশ দলে যে ১৫ জন খেলোয়াড় আছে তারা সবাই ভালো খেলার সামর্থ রাখে। বাংলাদেশ দলে এখন একটা মোমেন্টাম যাচ্ছে এটা ধরে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এই মুহূর্তে যখন একটা খেলোয়াড়কে অভিযুক্ত করা হয় তখন তার জন্য মানসিকভাবে সে আপসেট হবে। তাসকিন হয়তো এখন ফুল স্পিডে বল করতে সাহস পাবে না। কারণ আইসিসি আপনাকে নিয়ে কিছু একটা করতে চাচ্ছে। আমি বলব বাংলাদেশ দল এখন ভালো খেলছে এই ভালো খেলাটা বন্ধ করার জন্য আইসিসির অনেক কিছু থাকতে পারে।

এই পরীক্ষার ফলাফল কত দিনের মধ্যে পাওয়া যাবে এর উত্তরে খালেদ মাসুদ বলেন, আমি যতদূর জানি ২১ দিনের একটা সময় থাকে। কিন্তু আমি আশা করি তাসকিন এবং সানি দুজনেই পরীক্ষায় পাস করবে। আমার কাছে মনে হয় এটা বড় কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু ব্যাপার হচ্ছে খেলতে পারার চেয়ে কেন এই মুহূর্তে একটি দল বা কোনো খেলোয়াড়কে বিরক্ত করা হচ্ছে।

Comments

comments