ব্রেকিং নিউজ

জইশ নেতা মাসুদ আজহারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপে জাতিসংঘে ভারত

jois-thebdexpress

দ্য বিডি এক্সপ্রেস.কম:

পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ নেতা মাসুদ আজহারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে জাতিসংঘে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভারত। এরমধ্যেই সীমান্তের কাছে নয়াদিল্লী সামরিক সরঞ্জাম মোতায়েন করে এ অঞ্চলে স্থিতিশীলতা নষ্ট করছে বলে অভিযোগ করেছে ইসলামাবাদ। রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অধ্যাপককে গ্রেফতারের প্রতিবাদে জম্মু কাশ্মীরে বিক্ষোভ করেছে স্বাধীনতাকামী শত শত মানুষ।অধ্যাপক এসএআর গিলানির মুক্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার জম্মু কাশ্মীরের শ্রীনগরে বিক্ষোভ করে স্বাধীনতাকামী আন্দোলনের নেতা-কর্মীরা। এ সময় স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে তাদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। স্পষ্ট কোনো প্রমাণ ছাড়াই কাশ্মীরি নাগরিক গিলানিকে বন্দি রাখা হয়েছে বলে দাবি বিক্ষোভকারীদের।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, 'অধ্যাপক গিলানিকে গ্রেফতার করে সরকার মারাত্মক ভুল করেছে। পুলিশের কাছে স্পষ্ট প্রমাণ না থাকার পরও ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে আটকে রাখা হয়েছে।'

ভারতের পার্লামেন্ট ভবনে হামলার দায়ে আফজাল গুরুর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে বিরোধিতা করার অভিযোগে গত সপ্তাহে জেএনইউ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা কানহাইয়া কুমারকে গ্রেফতার করা হয়। একই অভিযোগে এ সপ্তাহে অধ্যাপক এসএআর গিলানিকেও গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশ। বিষয়টি নিয়ে কাশ্মীরের পাশাপাশি ভারতের বিভিন্ন স্থানে গত কয়েকদিন ধরে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ করে আসছে ক্ষমতাসীন বিজেপি সমর্থক ও বিরোধীরা।

শুধু রাজপথেই নয়, এই ইস্যুতে উত্তপ্ত পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ লোকসভাও। বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিনের মতো জেএনইউ ইস্যুতে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দেন সরকার ও বিরোধীদলীয় নেতারা।

ভারতীয় অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলি বলেন, 'সবার স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে। তাই বলে রাষ্ট্রবিরোধী কথা বার্তা মেনে নেয়া যায় না।'

কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ বলেন, 'যারা রাষ্ট্রবিরোধী বক্তব্য দিয়েছে, টিভিফুটেজ দেখে নির্দিষ্ট করে সেইসব লোকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে সরকার পক্ষ যে রাজনীতি করছে তা নিন্দনীয়।'

এদিকে কাশ্মিরের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের কাছ থেকে পাকিস্তানি জঙ্গিরা সহযোগিতা পাচ্ছে বলে অভিযোগ তুললেন ভারতীয় সেনাপ্রধান। এ অবস্থায় পাঠানকোট হামলার জন্য পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ-কে আবারও দায়ী করে সংগঠনটির প্রধান মাসুদ আজহারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের উদ্যোগ নেয়ার কথা জানিয়েছে ভারতীয় পররাষ্ট্র দপ্তর।

ভারতীয় পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র বিকাশ স্বরূপ বলেন, 'অবিলম্বে মাসুদ আজহারের বিরুদ্ধে বিশ্ব সম্প্রদায়ের নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য আমরা জাতিসংঘের এ বিষয়ক কমিটির দ্বারস্থ হবো। জইশ-ই-মোহাম্মদ জাতিসংঘ নিষেধাজ্ঞার তালিকায় থাকলেও, দলটির নেতা সেই তালিকা নেই। বিষয়টি একেবারেই অসঙ্গতিপূর্ণ।'

তবে পাকিস্তান বলছে, তারা ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক চাইলেও নয়াদিল্লীর বৈরী আচরণের কারণেই তা সম্ভব হচ্ছে না। ভারত পাকিস্তান সীমান্তের কাছে নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলে সংঘাতকে উস্কে দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাকিস্তানের। এরপরও ভারতের সঙ্গে অস্ত্র প্রতিযোগিতায় নামার কোনো ইচ্ছা পাকিস্তানের নেই বলে উল্লেখ করেন পাক পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র।

Comments

comments