ব্রেকিং নিউজ

অবৈধ সিটিং সার্ভিস সিন্ডিকেটের হাতে জিম্মি নগরবাসী

seting-thebdexpress

দ্য বিডি েএক্সপ্রেস.কম।।

অবৈধ সিটিং সার্ভিস সিন্ডিকেটের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে রাজধানীর বাসযাত্রীরা। বেশি ভাড়া আদায়, হয়রানিসহ যাত্রীদের নানা অভিযোগ এই সার্ভিসের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি বাস ভাড়া বৃদ্ধির পর যাত্রীদের এই ভোগান্তি বেড়েছে কয়েকগুণ।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ- BRTA বলছে, কোন অনুমোদন ছাড়াই, শুধু বাণিজ্যিক লক্ষ্যে কিছু অসাধু বাস কোম্পানি এই সার্ভিস পরিচালনা করছে। শিগগিরই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও আশ্বাস তাদের। ফিটনেস বিহীন অধিকাংশ গনপরিবহনের গায়ে সিটিং সার্ভিস লিখে বাড়তি ভাড়া আদায় করছে। দৈর্ঘদিন যাবৎ সিটিং সার্ভিস নামে নৈরাজ্য চলে আসলেও রোদ করা যাচ্ছেনা।মিরপুর ১০ নাম্বার থেকে তালতলার ভাড়া নিচ্ছে ২০ টাকা।

গায়ে 'সিটিং সার্ভিস' লেখা থাকলেও অধিকাংশ বাসেই আসনের অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে দাঁড় করিয়ে বা রডে ঝুলিয়ে। নিয়ম থাকলেও যাত্রীদের টিকিট দেয়া হচ্ছে না; আদায় করা হচ্ছে বাড়তি ভাড়া। এসব বাসে চড়ে প্রতিনিয়ত ভোগান্তি ও প্রতারণার শিকার হচ্ছেন নিরুপায় যাত্রীরা। যাত্রীরা টিকিট চাইলে বাস চালকদের সহকারীর বাজে আচরণে মুখোমুখি হতে হয় অনেক সময়। তর্ক কখনো হাতাহাতিতেও গড়ায়।

একঘণ্টা চেষ্টা বরেও রাজধানীর শেওড়াপাড়া থেকে একটি সিটিং সার্ভিস বাসে ওঠা সম্ভব হয়নি। শুধু সেখানেই নয়, মিরপুর, ফার্মগেইট, বাংলামটর, শাহবাগ, মতিঝিল, ধানমন্ডিসহ গুরুত্বপূর্ণ সব স্টপেজেই একই অবস্থা। বেশিরভাগ সময়ই কাঙ্ক্ষিত যান পেতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয় অনেক যাত্রীকে। এছাড়া, বাড়তি ভাড়া তো আছেই। এ নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগের শেষ নেই।

মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্বর এলাকায় সিটিং সার্ভিস নামের এই অবৈধ সার্ভিসের তদারকিতে আছে বিভিন্ন শ্রমিক ইউনিয়নের নামধারী বেশ কিছু অসাধু ব্যক্তি। যাদের দৌরাত্ম্যে কোণঠাসা সাধারণ যাত্রীরা।

সিটিং সার্ভিস কী? আসলেই কি এর কোন বৈধতা আছে? এমন প্রশ্ন রাখা হয় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ-বিআরটিএ'র কাছে।

এ ব্যাপারে বিআরটিএ'র পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ারিং) মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম বলেন, 'সিটিং সার্ভিস বলে বিআরটিএ'র অনুমোদিত কোনো সার্ভিস নেই; তবে, বিভিন্ন ব্যানারে কিছু কোম্পানি সিটিং সার্ভিস পরিচালনা করে। অনিয়ম ঠেকাতে মোবাইল কোর্ট কাজ করছে। এছাড়া, ভাড়ার তালিকা আমরা সংশোধন করেছি।'

বিআরটিএ'র বক্তব্যের সঙ্গে বাস্তবতার মিল সামান্যই। তবে, পরিস্থিতি যাই হোক, সিটিং সার্ভিস নামধারী অবৈধ এই যানচলাচল নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে কর্তৃপক্ষ, এমনটাই প্রত্যাশা সাধারণ যাত্রীদের।সময় নিউজ

Comments

comments