ব্রেকিং নিউজ

হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া; আমেরিকা ও মিত্রদের উদ্বেগ

h2o-thebdexpress

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

উত্তর কোরিয়া জানিয়েছে তারা সফলভাবে প্রথমবারের মতো হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে। এর আগে দেশটির প্রধান পারমাণবিক কেন্দ্রের কাছাকাছি ‘কৃত্রিম ভূমিকম্প’ সৃষ্টি হয়েছিল বলে জানিয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়া। আজ বুধবার দেশটি আবারো পরমাণু বোমার পরীক্ষা করেছে বলে যখন ধারণা করা হচ্ছিল তখন এ ঘোষণা দিলো পিয়ংইয়ং।

এর মাধ্যমে বিশ্বের পরমাণু শক্তিধর উন্নত দেশগুলোর কাতারে পৌঁছেছে উত্তর কোরিয়া।

বোমা নিয়ে উত্তর কোরিয়ার কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। হাইড্রোজেন বোমা নিয়ে উত্তর কোরিয়ার পরীক্ষা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের নির্দেশের পরিপন্থী বলে দাবি করেছে প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান। আর যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, বোমা নিয়ে উত্তর কোরিয়ার পরীক্ষার বিষয়টি খতিয়ে দেখছে তারা।

হাইড্রোজেন বা থার্মোনিউক্লিয়ার বোমায় ফিউশন বিক্রিয়ার কারণে যে বিস্ফোরণ ঘটে, তা ইউরেনিয়াম বা প্লুটোনিয়ামের ফিশন বিক্রিয়ার চেয়েও শক্তিশালী। 

এর আগে গত মাসেই উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন দাবি করেন, তাঁরা হাইড্রোজেন বোমা তৈরি করেছেন। তবে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা ওই দাবি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। একইভাবে আজকের দাবি নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

রাষ্ট্র পরিচালিত কোরিয়ান সেন্ট্রাল টেলিভিশন'এর বিশেষ ঘোষণায় বলা হয়, উত্তর কোরিয়া হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা করেছে। সংবাদে আরো বলা হয়, উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন বৈরী নীতির কারণে পরমাণু অস্ত্র মজুদ করতে বাধ্য হয়েছে পিয়ংইয়ং। এ ছাড়া, ঘোষণায় আরো বলা হয়, উত্তর কোরিয়া দায়িত্বশীল রাষ্ট্র তাই এ প্রযুক্তি অন্যকে হস্তান্তর করবে না বা আক্রান্ত না হলে এটি ব্যবহার করবে না। অবশ্য উত্তর কোরিয়ার হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষার ঘোষণা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে অনেকেই। থার্মোনিউক্লিয়ার বোমার পরীক্ষা চালালে যে ব্যাপক মাত্রার ভূমিকম্প হয় আজকের ভূমিকম্প সে রকম ছিল না। বরং অতীতে দেশটি যে তিনটি পরমাণু বোমার পরীক্ষা করেছে তার মতই ছিল এটি। এর আগে ২০০৬, ২০০৯ এবং ২০১৩ পরমাণু বোমার পরীক্ষা করেছে দেশটি। 

Comments

comments