ব্রেকিং নিউজ

চাটখিলে আন্তঃস্কুল ফুটবল প্রতিযোগিতায় প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়দের উপর হামলা, আহত-১৫

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ মাধ্যমিক আন্তঃস্কুল/মাদ্রাসা ফুটবল প্রতিযোগিতার উপজেলা ভিত্তিক খেলায় হেরে যাওয়ার জেরে নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নে একটি বিদ্যালয়ের খেলোয়াড়দের উপর অন্য বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে গুরুত্বর জখমসহ অন্তত ১৫ শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। এসময় হামলাকারীরা ৩টি গাড়ী ভাঙচুর করে।
মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে ৭টা পর্যন্ত সাহাপুর উচ্চ বিদ্যালয় এলাকায় দফায় দফায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে গুরুত্বর জখম হয়েছে- সোমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও খেলোয়াড মো. রবিন, বাবলু, রকি, ফুহাদ এবং ফরয়ান। অপর আহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আন্তঃস্কুল ফুটবল প্রতিযোগিতার চাটখিল উপজেলার সেমিফাইনাল খেলায় সোমবার বিকেলে স্থানীয় পি.জি (পাঁচগাও) সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সোমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও সাহাপুর উচ্চ বিদ্যালয় মুখোমুখি হয়। খেলায় ট্রাইবেকারে সাহাপুরকে পরাজিত করে ফাইনাল নিশ্চিত করে সোমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়। এসময় ওই খেলার ফলাফল নিয়ে সাহাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলোয়াড়, শিক্ষকরা সোমপাড়ার দলে বহিরাগত খেলোয়াড় রয়েছে বলে পরিচালনা কমিটির কাছে অভিযোগ করে। পরবর্তীতে তাদের অভিযোগের কোন সত্যতা না পেয়ে কমিটি সোমপাড়াকে বিজয়ী বলে ঘোষণা করে। ঘটনায় ওই দলের খেলোয়াড় ও তাদের সমর্থকদের সাথে সোমপাড়ার খেলোয়াড়দের সাথে বাকবির্তকের ঘটনা ঘটে।
মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় ফাইনাল খেলায় একই মাঠে সোমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় উপজেলার জীবনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের মুখোমুখি হয়। খেলায় নির্ধারিত সময় গোল শূণ্য থাকায় টাইব্রেকারে জীবননগর উচ্চ বিদ্যালয় জয় লাভ করে। খেলা শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সোমপাড়ার খেলোয়াড়রা টেম্পু ও পিকআপভ্যান যোগে সাহাপুর স্কুলের পাশ দিয়ে যাওয়ার পথে তাদের উপর বহিরাগতদের নিয়ে হামলা চালায় সাহপুরের খোলোয়াডরা। এসময় হামলাকারীরা সোমপাড়ার খেলোয়াড় বহনকারী তিনটি গাড়ী ভাঙচুর এবং দফায় দফায় বাঁশ ও লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে সোমপাড়ার খেলোয়াড় ও সাধারণ শিক্ষার্থীসহ অন্তত ১৫ জনকে জখম করে।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চাটখিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, লক্ষ্মীপুর জেনারেল, নোয়াখালী জেনারেলসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করে। আহতদের মধ্যে রবিন ও বাবলুর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসরার জন্য তাদের ঢাকা পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।
সোমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম অভিযোগ করে বলেন, সাহপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক ও ছাত্ররা বহিরাগত লোকজন নিয়ে তাদের খেলোয়াড় এবং ছাত্রদের উপর হামলা চালিয়ে অন্তত ১৫ জনকে জখম করেছে। এ বিষয়ে তিনি উপজেলা নির্র্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের অবগত করেছেন।
সাহাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম হায়দার কাজল বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আহত ছাত্রদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কয়েজনের অবস্থা আশংকাজনক। এ ঘটনায় বহিরাগতসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
চাটখিল উপজেলা নির্র্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবরাউল হাসান মজুমদার জানান, সেমিফাইনাল খেলায় দুই বিদ্যালয়ের মধ্যে প্রাথমিক যে সমস্য হয়েছিল ওই বিষয়ে কোন পক্ষই আমাদের অবগত করেনি। হামলার ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাছিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হামলা ও ভাঙচুরের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হামলার ঘটনায় এখনো (রাত সাড়ে ১১টা) কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি।
এদিকে একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে যে কোন মুহুর্ত্বে এলাকা ভিত্তিক একটি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে।

Comments

comments