ব্রেকিং নিউজ

এই প্রথম ছিটমহলে বাংলাদেশি পতাকা উত্তোলন

চিটমহল ৩প্রতিবেদকঃ দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ভারত-বাংলাদেশ স্থল সীমান্ত বিল পাস হল ভারতের সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায়।

আজ (বুধবার) সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় এই বিলটি সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়ছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এই বিলটি রাজ্যসভায় পেশ করলে বিলটির পক্ষে ১৮০ ভোট পড়ে। বিপক্ষে কোনো ভোট পড়েনি।

সুষমা স্বরাজ বলেন, ‘যদি ভারতীয়রা বাংলাদেশি ছিটমহলের মধ্যে থাকতে চান তাহলে তারা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব পাবেন এবং যদি বাংলাদেশিরা ভারতীয় ছিটমহলের মধ্যে থাকতে চান তারা ভারতীয় নাগরিকত্ব পাবেন।’

ভারতের রাজ্যসভায় বাংলাদেশ ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন বিল পাস হওয়ার পর কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার অভ্যন্তরে অবস্থিত ভারতীয় ছিটমহল ১৫০নং দাসিয়ার ছড়ার কালিরহাট বাজারে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এসময় শত শত নারী পুরুষের উপস্থিতি আনন্দ মেলায় পরিণত হয়। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে একে অন্যকে জড়িয়ে ধরে উল্লাস প্রকাশ করেন।

পঞ্চগড়, জেলা সদরে অবস্থিত ভারতীয় গারাতি ছিটমহলের অনেক মানুষ পার্শ্ববর্তী পুকুরী ডাঙ্গা বাজারে টিভি দেখতে আসেন। বিকালে টেলিভিশন চ্যানেলে ভারতের রাজ্যসভায় বিলটি পাসের ব্রেকিং নিউজ দেখতে পেয়ে আনন্দে হই-হুল্লোড়ে বাজারে অন্যরকম পরিবেশ সৃষ্টি হয়। শোরগোল শুনে আশপাশের গ্রামের লোকজনও হাজির হয় সেখানে। তাৎক্ভাষণিকভাবে তারা আনন্দ মিছিলও বের করে।
১৯৭৪ সালের ১৬ মে দিল্লিতে বাংলাদেশর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধির মধ্যে দ্বিপাক্ষিক আন্তর্জাতিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে ২০১১ সালে সেপ্টেম্বর মাসে ঢাকায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের মধ্যে এ সংক্রান্ত প্রটোকল চুক্তি সই হয়। চুক্তিতে ভারত ও বাংলাদেশ নিজ নিজ দেশের অভ্যন্তরে ছিটমহল বিনিময়ে সম্মত হয়। ভারতে বাংলাদেশি ছিটমহল রয়েছে ৫১ টি, যার মোট এলাকা প্রায় ৭ হাজার ১১০ একর। অন্যদিকে বাংলাদেশের মধ্যে ভারতের ১১১টি ছিটমহল রয়েছে; সেই জমির পরিমাণ প্রায় ১৭ হাজার ১৬০ একর

Comments

comments