ব্রেকিং নিউজ

সূবর্ণচর উপজেলা স্বাস্হ কমপ্লেক্সে রোগীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

সাজেন সারওয়ারঃ মানুষের ৫ টি মৌলিক চাহিদার অন্যতম চিকিৎসা। আর এই চিকিৎসা সেবা নেওয়ার জন্য মানুষের অন্যতম ভরসা হাসপাতাল। আর মানুষের ভরসার স্থান হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার নামে দিন দিন বাড়ছে যৌন নির্যাতনের সংখ্যা। ঢাকা বিশ^ বিদ্যঅলয়ের যৌন নির্যাতনের ঘটনায় যখন সারা দেশে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে তখন জানা গেল এক ভয়াবহ যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘটে চলছে নোয়াখালির প্রত্যন্ত চর এলাকা সূবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। অভিনব উপায়ে সেখানে নারীদের যৌন হয়রানী করা হচ্ছে।

সূত্রে জানা গেছে, উপজেলাটি ৮টি ইউনিয়নে ৭২টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত জনসংখ্যা প্রায় ৪ লাখ। এ অঞ্চলের প্রায় ৫০ ভাগ মানুষই দারিদ্র সীমার নিচে বস-বাস করে। যাদের নুন আনতে পানতা ফুরায় তাদের নিজেদের স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবা অনেক দূরুহ ব্যাপার। নিম্ন আয়ের এ মানুষ গুলোর জন্য ভাবতে চায় না কেউ। এত বিশাল জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবার একমাত্র ভরসা সূবর্ণ চর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে রয়েছে ডাক্তার ও জনবলের সঙ্কট। জনবল সঙ্কটের সূবিধা নিচ্ছে স্বার্থান্বেষী একটি মহল।

সূত্র জানায়, হাসপাতালের বহিঃবিভাগে ফার্মাসিস্ট রেজাউল নামের জনৈক লোক নিজেকে ডিউটি ডাক্তার পরিচয় দিয়ে রোগী দেখেন। তাকে সহযোগিতা করেন
চধমব ২ ড়ভ ৩ ওই এলাকার প্রভাবশালী মিজান নামের জনৈক মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টিভ। নাম প্রকাম না করার শর্তে, একজন মহিলা রোগী জানান, তার ব্লিডিংয়ের সমস্যা। তিনি চিকিৎসার জন্য সূবর্ণ চর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। সেখানে ফার্মাসিস্ট রেজাউল নামের জনৈক লোক নিজেকে ডিউটি ডাক্তার পরিচয় দিয়ে তার চিকিৎসা করবেন বলে জানান। এক পর্যায়ে ওই রোগীকে রেজাউল সরাসরি সেক্স করার প্রস্তাব দেয়। এতে বিব্রত হয়ে ওই মহিলা কৌশলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বেরিয়ে যান। বাইরে যাওয়ার পথে ওই এলাকার প্রভাবশালী মিজান নামের জনৈক মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টিভ তাকে হত্যা করার হুমকি প্রদান করে বলে এই গটনা যেন কাউকে না বলে।

ওই রোগী আরও জানান, তার সামনেই ওই এলাকার এক প্রভাবশালী পরিবারের বউ একই সমস্যার কারনে সেখানে আসলে তাকেও সেক্সুয়াল হ্যারেজমেন্ট করা হয়। একপর্যায়ে ওই রোগীর অবস্থা ভয়ানক খারাপ হয়ে পরে। পরে ওই মহিলাকে ঢাকায় এনে চিকিৎসা করা হয়।

মিজান ও রেজাউলের বিশাল সিন্ডিকেট থাকায় ভয়ে কেউ এ বিষয়ে মুখ খোলেনা। কান্না জড়িত কণ্ঠে ওই রোগী জানায়, উচ্চ পর্যায় থেকে যদি সঠিক তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে ভয়ানক একটি চক্র এখানে রোগীদের সেবা দেয়ার নামে যৌন নির্যাতন করছে। এ অভিযোগের বিষয়ে মুঠো ফোনে মিজান (০১৭৩০৩২৯২৩৫, ০১৯৫৫৫২৬৪৬৭) জানান, আমি সূবর্ণ চর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সকল কাজই করি। যৌন চধমব ৩ ড়ভ ৩ নির্যাতনের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, হ্যা কেউ যদি তাকে কিছু করতে বলে তাহলে সে করে। এ অভিযোগের বিষয়ে মুঠো ফোনে ফার্মাসিস্ট রেজাউল (০১৭১৬৩৪২৮০৭) অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি এরকম কোন কাজের সাথে জড়িত না আর আমি মিজান নামের কাউকে চিনি না। অভিযোগ কারী মহিলারা নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থ প্রকাশ্যে আসতে চাচ্ছেননা। তারা আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লীষ্ট কর্তৃপক্ষের তদন্ত পূর্বকব্যবস্থ্যা গ্রহন করার দাবী জানায়।

Comments

comments