ব্রেকিং নিউজ

ভারতে বিশ্ব ভালোবাসা উদযাপনের বিরুদ্ধে কঠোর সতর্কবাণী– হিন্দু মহাসভা।

download-65দ্য বিডি এক্সপ্রেসঃ ভারতে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস বা ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপনের বিরুদ্ধে কঠোর সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছে গোড়াপন্থি দল হিন্দু মহাসভা। তারা মল এবং রেস্টুরেন্টের মত পাবলিক প্লেসে ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপনের বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে। পাশাপাশি দেশের সোসাল নেটওয়ার্ক সাইটগুলোতেও ওৎ পাতার ঘোষণা দিয়েছে দলটি।

উগ্রপন্থি এ দলটির নেতারা জানিয়েছেন, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি কোনো প্রেমিক-প্রেমিকাকে গোলাপ ফুল হাতে দেখা গেলে, বা পার্কের কোণায় কোনো জুটিকে আলিঙ্গনরত অবস্থায় দেখা গেলেই তারা তাদের বিয়ে দিয়ে দেবেন। এ বিষয়ে তাদের যুক্তি হচ্ছে, ভারতের মতো দেশে এ ধরণের পশ্চিমী প্রথা উদযাপন করা শোভা পায় না।

প্রেমিক প্রেমিকাদের আর্য সমাজের নিয়ম মেনেই বিয়ে দেওয়া হবে। যদি প্রেমিক ও প্রেমিকা এক ধর্মের বা গোত্রের না হন, তবে তাদের শুদ্ধিকরণ প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে।

মহাসভার সভাপতি চন্দ্র প্রকাশ কৌশিক স্থানীয় টাইমস অব ইন্ডিয়াকে জানিয়েছেন, ‘ভারতের মতো দেশে বছরের ৩৬৫ দিনই ভালোবাসার দিন। তাহলে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন করার প্রয়োজন কী? আমরা ভালবাসার বিপক্ষে নই, কিন্তু যারা একে অপরকে ভালবাসে বলে দাবি করে তাদের অবিলম্বে বিয়ে করা উচিত। যদি তারা আমাদের বলেন যে ভাবার জন্য সময় প্রয়োজন, তাহলে অবশ্যই তাদের একসঙ্গে ঘোরাফেরা করা উচিত নয়। আমরা ওদের অভিভাবকদেরও বিষয়টা জানাবো।’

হিন্দু মহাসভা ভারতের সোস্যাল মিডিয়াগুলোতে এ সংক্রান্ত প্রচারণা শুরু করতে যাচ্ছেন আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে। দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা তাদের ভালোবাসা বিরোধী অভিযানে ঝাঁপিয়ে পড়ছে। এ সম্পর্কে গেরুয়াবসনধারীদের নেতা কৌশিক বলেন,‘ স্যোসাল সাইটগুলোতে প্রথমে আমরা প্রকৃত ভালোবাসা সম্পর্কে ধারণা দেব। কিন্তু যারা আমাদের এসব উপদেশ শুনবে না, আমরা তাদের টেলিফোন নাম্বার এবং বাসার ঠিকানা চাইব। এরপর তাদের বাড়িতে গিয়ে তাদের বিয়ে দিয়ে দেব।’

মহাসভার প্রেসিডেন্ট আরো বলেন,‘তারা টেলিফোন নাম্বার না দিলে আমরা সরাসরি ওদের বাবা-মায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করব। বিশেষ করে যেসব প্রেমিক প্রেমিকা অনলাইনে সক্রিয় রয়েছেন তাদেরকেই খুঁজে বের করা হবে।’

প্রেমিক-প্রেমিকাদের খুঁজে বের করার জন্য ইতিমধ্যে উত্তর প্রদেশে বিভিন্ন দল নিযুক্ত করেছে হিন্দু মহাসভা।

 

Comments

comments