ব্রেকিং নিউজ

পোশাক খাতের লিংকেজ শিল্পগুলোও ঋণ পাবে

প্রতিবেদকঃ কারখানায় নিরাপদ পরিবেশ তৈরিতে নতুন ভবণ নির্মান ও প্রয়োজনীয় সংস্কারের জন্য পোশাক খাতের লিংকেজ শিল্পগুলোর মালিকরা বাংলাদেশ ব্যাংকে থেকে বিশেষ ঋণ সুবিধা নিতে পারবেন। গতকাল এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্রিন ব্যাংকিং এন্ড সিএসআর বিভাগ।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে পরিবেশবান্ধব শিল্প গড়ে তুলতে ‘নবায়নযোগ্য জ্তালানি ও পরিবেশবান্ধব অর্থায়নযোগ্য খাতে পুনঅর্থায়ন স্কীম’ শীর্ষক ২০০ কোটি টাকার পুনঅর্থায়ন তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই তহবিল থেকে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নিতে পারবেন স্কিমের আওতাভূক্ত শিল্প মালিকরা। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকে এ তহবিলের ঋণ বিতরণ করছে মাত্র ৫ শতাংশ সুদে।
গত আগস্টে বস্ত্র ও পোশাকখাতসহ তিনটি খাতকে এ স্কিমের আওতাভূক্ত করা হয়। পোশাক শিল্প মালিকরা পরিবেশবান্ধব ও নিরাপদ কারখানা করতে এক কোটি টাকা ঋণ নিতে পারবেন। গতকাল পোশাক খাতের লিংকেজ শিল্পগুলোকে এ স্কীমের আওতাভুক্ত করা হয়। 
সার্কুলারে বলা হয়েছে, নবায়নযোগ্য জ্তালানি ও পরিবেশবান্ধব অর্থায়নযোগ্য খাতে পুনঅর্থায়ন স্কিম নীতিমালায় ৯টি খাতে মোট ৪৭টি শিল্পে পুনঅর্থায়ন সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে। কারখানায় কর্মরতদের কর্মপরিবেশ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ গার্মেন্টস এক্সেসরিজ এন্ড প্যাকেজিং ম্যানফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোটার্স এসোসিয়েশন (বিজিএপিএমইএ) এবং বাংলাদেশ টেরি তাওয়েল এন্ড লিনেন ম্যানুফাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিটিটিএলএমইএ) সদস্যভুক্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকরা এ স্কীম থেকে ঋণ নিতে পারবেন। কারখানায় অগ্নিনির্বাপক সামগ্রী, অগ্নি প্রতিরক্ষামূলক সামগ্রী, ছাদ ও ভূগর্ভে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পানি সংরক্ষণাগার নির্মান এবং সংস্কারের জন্য এ ঋণ দেয়া হবে।

কারখানায় নিরাপদ পরিবেশ তৈরিতে নতুন ভবণ নির্মান ও প্রয়োজনীয় সংস্কারের জন্য পোশাক খাতের লিংকেজ শিল্পগুলোর মালিকরা বাংলাদেশ ব্যাংকে থেকে বিশেষ ঋণ সুবিধা নিতে পারবেন। গতকাল এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্রিন ব্যাংকিং এন্ড সিএসআর বিভাগ।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে পরিবেশবান্ধব শিল্প গড়ে তুলতে ‘নবায়নযোগ্য জ্তালানি ও পরিবেশবান্ধব অর্থায়নযোগ্য খাতে পুনঅর্থায়ন স্কীম’ শীর্ষক ২০০ কোটি টাকার পুনঅর্থায়ন তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই তহবিল থেকে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নিতে পারবেন স্কিমের আওতাভূক্ত শিল্প মালিকরা। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকে এ তহবিলের ঋণ বিতরণ করছে মাত্র ৫ শতাংশ সুদে।
গত আগস্টে বস্ত্র ও পোশাকখাতসহ তিনটি খাতকে এ স্কিমের আওতাভূক্ত করা হয়। পোশাক শিল্প মালিকরা পরিবেশবান্ধব ও নিরাপদ কারখানা করতে এক কোটি টাকা ঋণ নিতে পারবেন। গতকাল পোশাক খাতের লিংকেজ শিল্পগুলোকে এ স্কীমের আওতাভুক্ত করা হয়। 
সার্কুলারে বলা হয়েছে, নবায়নযোগ্য জ্তালানি ও পরিবেশবান্ধব অর্থায়নযোগ্য খাতে পুনঅর্থায়ন স্কিম নীতিমালায় ৯টি খাতে মোট ৪৭টি শিল্পে পুনঅর্থায়ন সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে। কারখানায় কর্মরতদের কর্মপরিবেশ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ গার্মেন্টস এক্সেসরিজ এন্ড প্যাকেজিং ম্যানফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোটার্স এসোসিয়েশন (বিজিএপিএমইএ) এবং বাংলাদেশ টেরি তাওয়েল এন্ড লিনেন ম্যানুফাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিটিটিএলএমইএ) সদস্যভুক্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকরা এ স্কীম থেকে ঋণ নিতে পারবেন। কারখানায় অগ্নিনির্বাপক সামগ্রী, অগ্নি প্রতিরক্ষামূলক সামগ্রী, ছাদ ও ভূগর্ভে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পানি সংরক্ষণাগার নির্মান এবং সংস্কারের জন্য এ ঋণ দেয়া হবে।

 

Comments

comments