ব্রেকিং নিউজ

বিজয় আমাদের অহংকার

sritisoudবিডি এক্সপ্রেসঃ ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। দীর্ঘ নয়মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের এই দিনে বিকেলে রমনার রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে) হানাদার পাকিস্তানী বাহিনী যৌথবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। যে অস্ত্র দিয়ে বর্বর পাকবাহিনী দীর্ঘ নয় মাস ত্রিশ লাখ বাঙালিকে হত্যা করেছে, দু’লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম কেড়ে নিয়েছে সেই অস্ত্র পায়ের কাছে নামিয়ে রেখে এক রাশ হতাশা এবং অপমানের গ্লানি নিয়ে লড়াকু বাঙালির কাছে পরাজয় মেনে নেয়। সেই থেকে ১৬ ডিসেম্বর জাতির বিজয় দিবস পালিত হয়ে আসছে। এ দিনটি হচ্ছে বাঙালি জাতির হাজার বছরের শৌর্যবীর্য এবং বীরত্বের এক অবিস্মরণীয় দিবস। বীরের জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করার দিবস। ঘুরে ঘুরে আবার চলে এসেছে সেই দিনটি। ষোলই ডিসেম্বর। পয়লা জানুয়ারীর মত। পয়লা বৈশাখের মত। ষোলই   ডিসেম্বর হল আমাদের জাতীয় জীবনের পয়লা জানুয়ারী আর পয়লা বৈশাখ। ৭১ থেকে যদি গণনা শুরু করি তাহলে আমাদের পঞ্জিকার ৪৩তম জন্মদিন।আমাদের অস্তিত্বের ৪২ বছর পুরো হয়ে গেল আজকে। আমাদের স্বাধীনতার, আমাদের পাকিস্তানিত্ব ছিন্ন হবার পূর্ণ ৩৯ বছর। একথা আজ আর কারো অজানা নয় যে, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ ছিল তৎকালীন পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর দুঃশাসন,অন্যায়, বৈষম্য ও সামাজিক অবিচারের বিরুদ্ধে স্বতস্ফুর্ত প্রতিবাদ। আর এ কারণেই একাত্তরের বিজয় শুধু পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বিজয় নয়, এ বিজয় ছিল শোষকের বিরুদ্ধে শোষিতের বিজয়।

Comments

comments