ব্রেকিং নিউজ

হঠাৎ বাড়ল ডলারের দাম

imagesহঠাৎ করেই ডলারের দাম বেড়েছে। ১০ দিনের ব্যবধানে দাম বেড়েছে ১ টাকা ৪০ পয়সা। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কয়েকটি কারণে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বেড়েছে। চলতি বছরের আগস্ট থেকে গত ১০ নভেম্বর পর্যন্ত আমদানির ক্ষেত্রে প্রতি ডলারের দাম ছিল ৭৭ টাকা ৪০ পয়সা। মঙ্গলবার প্রতি ডলার ৭৮ টাকা ৮০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে এটি ছিলো ডলারের সর্বোচ্চ দাম। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিনিয়োগ পরিবেশ ফিরে আসায় আমদানি বেড়েছে। এ কারণেই ডলারের চাহিদা বেড়েছে। ফলে টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বেড়েছে। কয়েকটি এক্সচেঞ্জ হাউস সিন্ডিকেট করে ডলারের দাম বাড়িয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। ডলারের দাম বৃদ্ধি সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেক্স রিজার্ভ অ্যান্ড ট্রেজারি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের মহাব্যবস্থাপক কাজী ছাইদুর রহমান জানান, ‘দেশে ব্যবসার পরিবেশ ফিরে এসেছে। তাই বিনিয়োগ বাড়ছে। ঋণপত্র খোলাও আগের চেয়ে বেড়েছে। এ কারণে ডলারের চাহিদা তৈরি হয়েছে এবং মূল্যও কিছুটা বেড়েছে।’ তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানিসহ ঋণপত্র খোলার সংখ্যাও বেড়েছে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনও ঋণপত্র খুলছে। জাহাজ ভাঙা শিল্পের মালিকরাও পুরোনো জাহাজ ও স্ক্র্যাপ আমদানি শুরু করেছে। পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের বিদেশি ঋণ পরিশোধের পরিমাণ বেড়েছে। এ কারণে দীর্ঘদিন পর ডলারের চাহিদা তৈরি হয়েছে। ফলে ডলারের মূল্য কিছুটা বেড়েছে। ডলারের দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন আমদানিকারকেরা। কয়েকজন আমদানিকারক জানান, ‘হঠাৎ মুদ্রা বাজারে অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাজার পরিস্থিতি সামাল দিতে ২ বছর পাঁচ মাস পর ৪৫ মিলিয়ন ডলার বিক্রি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বাড়ায় কয়েকটি এক্সচেঞ্জ হাউস ডলার সংগ্রহ শুরু করে। ফলে বাজারে সৃষ্টি হয় সংকট। তবে বিনিয়োগ পরিবেশ ফিরে আসায় আমদানি বেড়েছে- এ কারণে ডলারের চাহিদা বেড়েছে বলে মনে করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসেবে, চলতি বছরের আগস্ট থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর ডলারের ক্রয়মূল্য ছিল ৭৭ টাকা ৪০ পয়সা। ১১ নভেম্বর ছিল ৭৭ টাকা ৪৪ পয়সা হয়, ১২ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৪৮ পয়সা, ১৩ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৪৮ পয়সা, ১৬ ও ১৭ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৫১ পয়সা, ১৭ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৫৪ পয়সা, ১৮ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৫৫ পয়সা, ১৯ ও ২০ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৫৭ পয়সা, ২৩ নভেম্বর ৭৭ টাকা ৬০ পয়সা ও ২৪ নভেম্বর ছিল ৭৭ টাকা ৬৩ পয়সা। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য মতে, ২০১২ সালের ২০ জুন কেন্দ্রীয় ব্যাংক সর্বশেষ ১০ মিলিয়ন ডলার বাজারে বিক্রি করে। এরপর থেকে গত সপ্তাহ পর্যন্ত ১১ বিলিয়ন ডলার ক্রয় করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নভেম্বরে দাঁড়ায় ২১ হাজার ৪৬৯ মিলিয়ন ডলারে।

Comments

comments