দিল্লী সীমান্তে শক্তি বাড়িয়েছে আন্দোলনরত কৃষকরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ভারতে বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের পাশ করা বিতর্কিত তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লীর উপকণ্ঠে আন্দোলনরতদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে আরও কয়েক হাজার কৃষক। দাঙ্গা পুলিশের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের ধস্তাধস্তির পর বৃহস্পতিবার মধ্যরাতেই এ কৃষকরা যোগ দেন। এদিকে শুক্রবার সিঙ্ঘু সীমানায় কৃষকদের লক্ষ্য করে ছোড়া হয়েছে পাথর এবং হাতাহাতির তলোয়ারের আঘাতে আহত হয়েছেন দুই পুলিশ সদস্য।

কর্তৃপক্ষ দিল্লীর পূর্ব অংশের একটি স্থান থেকে কৃষকদের তুলে দিতে চাইলেও সফল হতে পারেনি। আন্দোলনরত কৃষকরা জানিয়েছেন, তারা এক পা’ও পিছু হটবেন না। ভারতী কিষান ইউনিয়নের (বিকেইউ) এক শীর্ষ নেতা বলেছেন, পিছু হটা মানেই আত্মসমর্পণ করা। বিকেইউ নেতা রাকেশ তিকায়েত বলেন, ‘পুলিশি দমনপীড়ন নিয়ে উদ্বেগ থেকে কয়েক হাজার কৃষক, যারা এ আন্দোলনে ছিলেন না, তারা শক্তি বাড়াতে আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন।’

উত্তর প্রদেশের বেশ কয়েকটি গ্রামে প্রভাবশালী জাঠ সম্প্র্রদায়ের সদস্যরাও শুক্রবার কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে। খবর রয়টার্স, আলজাজিরা ও আনন্দবাজার পত্রিকার।

বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যেই গাজীপুর থেকে সরে যেতে নির্দেশ দিয়েছিল উত্তর প্রদেশের প্রশাসন। গাজীপুর ছাড়াও দিল্লির সীমানায় সিঙ্ঘুু এবং টিকরির বিক্ষোভস্থলে প্রচুর পুলিশও মোতায়েন করা হয়। গাজীপুরে বিদ্যুত্-সংযোগ কেটে দেওয়ার পাশাপাশি বন্ধ করে দেওয়া হয় পানি সরবরাহ। কৃষকদের তুলে দিতে হাজির ছিল বিজেপি নেতাকর্মীরাও।

আন্দোলনরত এক কৃষক বলেন, ‘গাজীপুর থেকে আমাদের তুলে দিতে হাজির হয়েছিলেন স্থানীয় বিজেপি নেতারা। প্রচুর পুলিশ এসেছিল। আমাদের এখান থেকে তুলে দেওয়ার চেষ্টা হয়।’ বিজেপি-শাসিত রাজ্য হরিয়ানা থেকেও আন্দোলনকারীদের সরে যেতে নির্দেশ দিয়েছে মনোহরলাল খট্টর প্রশাসন। রাজ্যটির কার্নালে দিল্লির আন্দোলনকারীদের সমর্থনে দুই মাস ধরে বিক্ষোভ-সমাবেশ চলছে।

Comments

comments