ব্রেকিং নিউজ

রংপুরে পরকীয়ায় বাঁধা দেয়ায় গৃহবধূকে হত্যা

রংপুর প্রতিনিধি:
রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার বৈরাগীগঞ্জের লক্ষণপাড়া গ্রামে স্বামীর পরকীয়া ও গোপনে দ্বিতীয় বিয়েতে বাধা দেয়ায় নাসরিন বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামীসহ তার পরিবারের লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে। পুলিশ তাদের খোঁজে মাঠে নেমেছে। 

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, রংপুর নগরীর দমদমা লক্ষণপাড়া গ্রামের ইলিয়াছ মুনশির মেয়ে নাগরিন বেগম। তার সাথে পারিবারিকভাবে ৬ বছর পূর্বে মিঠাপুকুর উপজেলার তালেব মিয়ার ছেলে রাজু মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়েতে মেয়ের পরিবার ২ লাখ টাকা যৌতুকসহ বিভিন্ন ধরনের উপঢৌকন দেয়। এসব টাকা মাদক ও জুয়া খেলে উড়িয়ে দেয় স্বামী রাজু মিয়া। পরে আবারও স্ত্রী ও তার পরিবারের কাছে যৌতুকের জন্য টাকা দাবি করে। যৌতুকের টাকা না পেয়ে স্ত্রীর ওপর নির্যাতন চালাতে থাকে।

এরই মধ্যে রাজু একই উপজেলার বদলীপুকুর গড়েরপাড় গ্রামের এক নারীর সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকবার সালিশ-বৈঠক হয়। তারপরও রাজু বেপরোয়া হয়ে ওঠে। গোপনে ওই নারীকে দ্বিতীয় বিয়ে করে। এতে নাসরিন বাধা দিলে তাকে নির্যাতন করে।

শুক্রবার রাতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে এ নিয়ে ঝগড়া হলে রাজু তাকে পিটিয়ে হত্যা করে ঘরের তীরে লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। পরে শনিবার সকালে স্থানীয়রা বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশকে খবর দেন।

নিহতের পরিবারের দাবি, তাদের জামাই রাজু মাদকাসক্ত ছিল। বিয়ের পর থেকেই তাদের মেয়েকে নির্যাতন করত। বিভিন্ন নারীর সাথে তার পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। সম্প্রতি গোপনে এক নারীকে দ্বিতীয় বিয়ে করে। বিষয়টি জানাজানি হলে স্ত্রীর সাথে ঝগড়া হয়। পরে তাদের মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে ঘরের তীরে লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। তারা এ ঘটনার কঠোর শাস্তি দাবি করেন।
মিঠাপুকুর থানার ওসি জানান, বিষয়টি শুনেছি। এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Comments

comments