৬০ কোটি টাকা চাঁদা দাবি, বঙ্গলীগ প্রেসিডেন্ট শওকত কারাগারে

প্রতিবেদক

ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেসের (ইউআইটিএস) উপাচার্যকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ৬০ কোটি টাকা চাঁদা দাবির ঘটনায় ‘বাংলাদেশ জাতীয় বঙ্গলীগ’র প্রেসিডেন্ট শওকত হাসান মিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

আজ সোমবার দুপুর পৌনে একটার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম বাকী বিল্লাহর (১১ নম্বর কোর্ট) আদালতে আত্মসমর্পণ করেন শওকত। আসামি ও বাদি পক্ষের শুনানি শেষে শওকতের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। 

পিএইচপি’র অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইউআইটিএস’র পক্ষে জামিনের বিরোধিতায় শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. আব্দুল মান্নান ভুইয়া, অ্যাডভোকেট মো. জোবায়ের হোসেন ও অ্যাডভোকেট রোমেসা পারভীন।

গত ১২ জুলাই ‘ইউআইটিএসের উপাচার্যের কাছে ৬০ কোটি চাঁদা দাবি; জামিন নিয়েই লাপাত্তা বঙ্গলীগের প্রেসিডেন্ট শওকত’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয় দৈনিক আমাদের সময়ে। শওকত হাসান মিয়া ও তার ক্যাডারদের বিরুদ্ধে ইউআইটিএস উপাচার্যকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ৬০ কোটি চাঁদা দাবির যে অভিযোগ উঠেছে, পুলিশ সে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।
চাঁদা দাবির এ ঘটনায় গত ২ জানুয়ারি রাজধানীর ভাটারা থানায় শওকতকে প্রধান আসামি করে মামলা করেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির উপাচার্যের ব্যক্তিগত সহকারী মো. মোস্তফা কামাল, যার মামলা নম্বর-২(১)২০। এ মামলায় গত ৮ জানুয়ারি উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নিয়ে লাপাত্তা হয়ে যান শওকত হাসান। আদালত তাকে ছয় সপ্তাহের জামিন দিয়েছিলেন। কিন্তু জামিনের মেয়াদ শেষ হলেও উচ্চ আদালতের নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এতদিন নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করেননি তিনি। গতকাল ওই মামলায় আত্মসমর্পণ করলে শওকতকে কারাগারে পাঠান আদালত।

Comments

comments