সাহেদের ফের ২৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

প্রতিবেদক:
রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদের ২৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুদ পারভেজের ২১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। মোট চারটি মামলায় এই রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। আজ রোববার (২৬ জুলাই) পুলিশ ৪০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত শুনানি শেষে সাহেদের ২৮ ও মাসুদ পারভেজের ২১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে রোববার সকাল ১০ টায় ১০ দিনের রিমান্ড শেষে তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিমে তিন ও উত্তরা পূর্ব থানায় প্রতারণার এক মামলায় গ্রেফতার দেখানোর পর ১০ দিন করে মোট ৪০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। এ সময় তাদের রাখা হয় আদালতের হাজতখানায়। পরে বেলা ১২টা ১০ মিনিটের দিকে পুলিশ পাহারায় একটি গাড়িতে করে বের করা হয়। এরপর শুনানির জন্য তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত হাজির করা হয়। শুনানি শেষে আদালত সাহেদের পৃথক চারটি মামলায় ৭ দিন করে মোট ২৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ১৬ জুলাই সাহেদ-মাসুদ ও তরিকুলকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় দায়ের করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তিনজনের ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক এসএম গাফফার আলম। আদালত শুনানি শেষে সাহেদ ও মাসুদের ১০ দিনের এবং তরিকুলের সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে করোনা চিকিৎসায় রিজেন্ট হাসপাতালের জালিয়াতি ধরা পড়ার পর ৮ জুলাই গ্রেফতার হন তরিকুল। ১০ জুলাই তার পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

গত ১৫ জুলাই সকালে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার শাখরা কোমরপুর বেইলি ব্রিজের পাশে নদীর পাড় থেকে বোরকা পরা অবস্থায় সাহেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে একটি অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এছাড়া গত ১৪ জুলাই সন্ধ্যা ৭টায় গাজীপুরের কাপাসিয়ার একটি বাড়ি থেকে মাসুদকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। 
উল্লেখ্য, করোনার ভুয়া রিপোর্টসহ নানা অনিয়ম ও জালিয়াতির অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের বিরুদ্ধে ৭ জুলাই উত্তরা পশ্চিম থানায় ১৭ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়। প্রথমে মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি) দেয়া হয়। পরে তা র‌্যাবের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সাহেদকেও পরে র‌্যাবের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

 

Comments

comments