ব্রেকিং নিউজ

নতুন সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নে মাঠে ভ্রাম্যমাণ আদালত

প্রতিবেদক

নতুন সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে ভ্রাম্যমান আদালত। রাজধানীর কয়েকটি পয়েন্টে এই আদালত পরিচালিত হচ্ছে। অন্যদিকে আইন সংস্কার দাবিতে ঘোষণা ছাড়াই বিভিন্ন জেলায় পরিবহন ধর্মঘট পালন করছে পরিবহন শ্রমিকরা। যদিও কোন চাপেই আইন কার্যকরে সরকার পিছু হটবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তবে বাস্তবায়নে বাড়াবাড়ি না করারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ নভেম্বরের প্রথম দিন থেকেই কার্যকর করে সরকার। কিন্তু নতুন আইন নিয়ে সচেতনতা, ট্রাফিক পুলিশের প্রস্তুতিসহ সার্বিক বিবেচেনায় মৌখিকভাবে নতুন আইনে মামলা, শাস্তি দুই সপ্তাহের জন্য পিছিয়ে দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) এই সময়সীমা শেষ হয়।

রোববার নতুন আইনের গেজেট হবার পর সোমবার থেকে আইনটি বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালত। রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় ভ্রাম্যমাণ আদালত নতুন আইনে মামলা ও শাস্তি দিয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত বলছে, নতুন আইনেই আমরা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি। এখন আমরা নমনীয় ভাব প্রদর্শন করছি তবে ধীরে ধীরে আমরা কঠিন হব।

সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জানিয়েছেন, যত বাধাই আসুক না কেন, নতুন আইন বাস্তবায়ন হবে। আইন বাস্তবায়ন করতে গিয়ে যেন বাড়াবাড়ি না করা হয় সে ব্যাপারে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন,  যত চাপই আসুক সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ বাস্তবায়ন করা হবেই। এছাড়াও পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের নতুন আইন মেনে চলার অনুরোধ করে সকল ধর্মঘট, বন্ধ থেকে বিরত থাকার জন্য আহ্বান করেন তিনি।

তবে সড়কে দুর্ঘটনা মামলায় চালকের শাস্তি কমানো ও মামলা জামিনযোগ্য করাসহ নানা দাবিতে খুলনা ও কুষ্টিয়া থেকে বেশিরভাগ রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেন শ্রমিকরা। দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ আছে নড়াইল ও যশোরেও। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা।

শ্রমিকরা বলছেন, আমাদের ৫লাখ টাকা জরিমানা, জামিন নাই এগুলো হলে কেমনে আমরা গাড়ি চালাবো। রাস্তায় গাড়ি চলচলে দূর্ঘটনা হতেই পারে, কেউ তো আর সেচ্ছায় অ্যাকসিডেন্ট করে না। তাই সরকারকে নতুন করে আইন বানাতে হবে, আর না বানালে কোন শ্রমিক আর গাড়ী চালাবে না।

দাবি না মানা হলে সারাদেশে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে আন্দোলনরত পরিবহন শ্রমিকরা।

Comments

comments