বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করতে প্রয়োজন সমন্বিত ‍উদ্যোগ

স্টাফ রিপোর্টার

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের হেলথ সেক্টরের উদ্যোগে “ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার ও ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গঠনে করণীয় ”শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তরা বলেন,  ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য শরীরের জন্য সরাসরি একশতভাগ ক্ষতিকর। তামাকের ক্ষতি  হ্রাস করতে প্রয়োজন সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন। সরকারকেও সকল প্রকার তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। মিডিয়া এক্ষেত্রে বিরাট ভ’মিকা পালন করতে পারে। তবে মাঠ পর্যায়ে মানুষের কাছে যেতে হবে এবং তাদেরকে বোঝাতে হবে। তাহলে ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করা সম্ভব।   

৪ মে, শনিবার, সকাল ১০টায় ঢাকার শ্যামলীতে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের হেলথ সেক্টরের প্রশিক্ষণ কক্ষে ‍আলোচনা সভায় সভাপত্বিত করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের হেলথ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদ। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ন্যাশনাল ইন্সিটিউট অব ক্যান্সার রির্সাচ এন্ড হসপিটাল এর সহযোগী অধ্যাপক ডা: হাবিবুল্লাহ তালুকদার, জাতীয় তামাক বিরোধী প্লাট ফর্মের কো-অডিনেটর ডা: মাহফুজুর রহমান ভূঞাঁ, এস এ টেলিভিশনের এসাইনমেন্ট এডিটর এম এম বাদশা, তামাক বিরোধী নারী জোটের কো-অডিনেটর সৈয়দা সাঈদা আক্তার, গ্রাম বাংলা উন্নয়ন কমিটি পরিচালক খন্দকার  রিয়াজ হোসেন, এইড ফাউন্ডেশনের আব্দুল কাদের রাজু সহ তামাক বিরোধী বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিগণ ও স্বাস্থ্য সেক্টরের বিভিন্ন প্রকল্পের কর্মীগণ। এ সভায় পাওয়ার পয়েন্ট প্রতিবেদন প্রদান করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন এর সহকারী পরিচালক ও তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের এর প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. মোখলেছুর রহমান ও তামাক বিরোধী নারী জোটের সমন্বয়কারী সাঈদা আক্তারসহ তামাক বিরোধী বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

Comments

comments