ব্রেকিং নিউজ

তৃণমূলের হয়ে প্রচারে বিজেপির প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

 কলকাতা: ১০ বছরের সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদীর বিরুদ্ধে এবার বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন সদ্য তৃণমূল ত্যাগী অর্জুন সিং। সেই ‘গদ্দার’ অর্জুনের বিরুদ্ধে প্রাক্তন বিজেপি নেতা তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যশবন্ত সিনহাকে প্রচারে নামাচ্ছে তৃণমূল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নৈহাটির ছাইগাদা ময়দানে তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদীর হয়ে জনসভা করবেন তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগে তৃণমূল কংগ্রেসের ১৯ জানুয়ারির ব্রিগেড সমাবেশেও অন্যতম বক্তা ছিলেন প্রাক্তন গেরুয়া শিবিরের এই নেতা৷ তৃণমূলের প্রচারে এসে তিনি বলেছিলেন, ২০১৪ সালে নির্বাচন জিততে মোদিকে সামনে রেখে লড়াই করার কথা বলাটা আমার ভুল ছিল । আমি জানতাম না প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর মোদি সেই কাজটাই করবেন যেটা তিনি গুজরাতে করেছিলেন, প্রজাতন্ত্রের গলা টিপে ধরা। আজকে আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যয়কেই প্রধানমন্ত্রী রূপে দেখতে চাই ৷
প্রসঙ্গত, অটল বিহারী বাজপেয়ী সরকারে মন্ত্রী ছিলেন যশবন্ত। পরে, ২০১৮ সালের ২১ এপ্রিল বিজেপি ছাড়েন যশবন্ত। একাধিকবার মোদীর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন যশবন্ত। অটল জমানার এই বিজেপি নেতাকে এবার প্রচারে এনে মোদীর বিরুদ্ধে মমতা নয়া চাল চাললেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

বৃহস্পতিবারই ভাটপাড়ার সভায় অর্জুনকে একহাত নেন মমতা৷ তিনি বলেন, “কেউ কেউ এমনও হন যে তাঁদের যতই দাও তাও সাধ মেটে না। এই জেলাতেই এরকম দু’জন আছে। একজন বড়, আরএকজন ছোট৷ ওদের এমপি করতে হবে, এমএলএ করতে হবে, দোকান দিতে হবে, হোটেল দিতে হবে, মল দিতে হবে, পাব দিতে হবে, মকান দিতে হবে, গার্ডেন দিতে হবে, বাজার দিতে হবে। সব চাই ওদের। আমি এত কিছু কী ভাবে দেব? দিতে দিতে খালি হয়ে গেছি।”

এরপরই তিনি বলেন, কেউ ওদের দিয়ে খুশি করতে পারবে না। তা ছাড়া নেওয়ার তো একটা ক্ষমতা থাকে মানুষের। কিন্তু তা না ওদের শুধু চাই চাই চাই। সব একলাই খেয়ে নেবে! বাকিরা কী অপরাধ করেছে! মমতা বলেন, ”দলে দু-একজন গদ্দার থাকে। এখানেও একজন গদ্দার ছিল। সে ভেবেছিল লোকসভার টিকিট চেয়েছিল। আমি দিইনি। কেন দেব? খালি গুণ্ডাগিরি করবে, কোনও উন্নয়নের কাজই করবে না। আর ভোটের সময় টিকিট চাইবে, এটা আমাদের দলে চলবে না”

Comments

comments