ব্রেকিং নিউজ

সুপ্রভাত পরিবহনের কন্ডাক্টর ও চালকের সাত দিনের রিমান্ড


প্রতিবেদক

বিউপির ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহতের মামলায় সুপ্রভাত পরিবহনের কন্ডাক্টর ইয়াসিন ও চালকের সহকারী ইব্রাহিমকে সাত দিন রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন আদালত।

বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী রিমান্ডের এ আদেশ দেন। এর আগে দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক কাজী শরিফুল ইসলাম। এসময় আদালতে দুই আসামির পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।
মামলা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে,  গত ১৯ মার্চ সকালে পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্ক থেকে সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাস নিয়ে রওনা দেন চালক সিরাজুল ইসলাম। পরে গুলশান থানাধীন শাহজাদপুর বাঁশতলা অতিক্রম করার সময় মিরপুর আইডিয়াল গার্লস ল্যাবরেটরি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী সিনথিয়া সুলতানা মুক্তাকে চাপা দেয়। গুরুতর আহত হয় ওই ছাত্রী। এই ঘটনার পর সুপ্রভাত বাসের যাত্রীরা সিরাজুলকে আটক করে ট্রাফিক পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন। উত্তেজিত হয়ে ওঠে জনতা। এই পরিস্থিতিতে বাসের কন্ডাক্টর ইয়াসিন দ্রুত চালকের আসনে বসে বাসটি চালিয়ে নিয়ে যান। বেপরোয়া গতিতে ছুটতে ছুটতে বাসটি চলে আসে নর্দ্দা এলাকায়। সেখানে ওই বাসই আবার চাপা দেয় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরীকে। পরে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে আবরারকে। এই ঘটনায় আসামি ইয়াসিনকে গ্রেফতারের পর গোয়েন্দা পুলিশের কাছে ঘটনার বিষয় স্বীকার করে।

এর আগে মঙ্গলবার চাঁদপুরের শাহরাস্তি থানার একটি ইটভাটা থেকে বাসের কন্ডাক্টর ইয়াসিন আরাফাতকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। ইয়াসিনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার সকাল সাতটায় রাজধানীর মধ্যবাড্ডা এলাকা থেকে চালকের সহকারী ইব্রাহিমকে গ্রেফতার করা হয়।
এরআগে ১৯ মার্চ সকালে রাজধানীর প্রগতি সরণি এলাকায় সুপ্রভাত পরিবহনের বাসের চাপায় নিহত হন বিইউপির ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী। এ ঘটনায় গুলশান থানায় মামলা হয়।

Comments

comments