দুই জেলায় বন্দুকযুদ্ধ, মাদক ব্যবসাহীসহ নিহত ৩

প্রতিবেদক:
সাতক্ষীরা ও ময়মনসিংহে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে তিনজন নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, নিহতদের মধ্যে দুজন আন্তঃজেলা মাদক ব্যবসায়ী ও আরেকজন ডাকাত সর্দার। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। 
গতকাল শনিবার মধ্যরাতে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাঁশদহা গ্রামের কয়ারবিল ব্রিজের পাশে এবং ময়মনসিংহের ভালুকায় উথুরা ইউনিয়নের হাইজ্যাকের মোড় নামক স্থানে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।সাতক্ষীরার সদর উপজেলায় আটকের পর পুলিশের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। নিহতরা হচ্ছেন- সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাঁশদহা গ্রামের আব্দুল গণির ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৩৮) ও কলারোয়া উপজেলার কেড়াগাছি গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৪৫)। 
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ আহমেদ জানান, শনিবার বিকেলে মাদক ব্যবসায়ী দেলোয়ার ও আবুল কালামকে কিছু গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ গোয়েন্দা পুলিশ বাঁশদহা বাজার থেকে আটক করে। রাতে জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেন, রাতে মাদকের একটি বড় চালান ভারত থেকে আসবে। পরে তাদেরকে নিয়ে মধ্যরাতে মাদকের চালান উদ্ধারে যায় পুলিশ।
উপজেলার বাঁশদাহ এলাকায় পৌঁছালে সেখানে আগে থেকে ওত পেতে থাকা তাদের সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছোড়ে। এ সময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে তারা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে দুজনকে গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে থাকতে দেখে। তাদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। 
মারুফ আহমেদ বলেন, বন্দুকযুদ্ধে পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তারা হলেন, এসআই রিয়াদুল, এএসআই সুমন, এএসআই মাজেদুল ও দুই কনস্টেবল রুবায়েত ও তুহিন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। 
ঘটনাস্থল থেকে একটি সুটারগান, এক রাউন্ড গুলি, কিছু ফেনসিডিল ও তিন কেজি গাজা উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে রয়েছে বলেও জানান ওসি। 

ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মুরাদ আকন্দ (৩০) নামে এক ডাকাত সর্দার নিহত হয়েছেন। নিহত মুরাদ ওই এলাকার শাহজাহান আকন্দের ছেলে।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার রাতে উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের হাইজ্যাকের মোড় এলাকায় গোপন সংবাদে ভালুকা মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদারের নেতৃত্বে থানা পুলিশ অভিযান চালাতে গেলে ডাকাত সর্দার পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট, পাটকেল নিক্ষেপসহ এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ শুরু করে। এ সময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে।
পরে মুরাদকে উপজেলার উথুরা রোডে হাইজ্যাক মোড় ব্রিজে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ। তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

Comments

comments