ব্রেকিং নিউজ

ঐক্যবদ্ধ থাকলে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিবেদক :

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিজয়ে উচ্ছ্বসিত হয়ে বলেছেন, এই বিজয়ই ভবিষ্যতে বিজয়ী হওয়ার পথ দেখাবে। এই ধারা বজায় রাখতে পারলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ বিজয়ী হতে পারবে।’

আজ (শনিবার) গাজীপুরে নবনির্বাচিত মেয়র জাহাঙ্গীর আলম দলের নির্বাচিত কমিশনার, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও সহযোগী সংগঠনের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ সাক্ষাত করতে গেলে শেখ হাসিনা এমন  মন্তব্য করেন।

এসময় প্রধানমন্ত্রী নবনির্বাচিত মেয়র ও নৌকাকে বিজয়ী করায় গাজীপুরবাসীকে ধন্যবাদ জানান। সংক্ষিপ্ত ভাষণে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বিজয়কে 'আওয়ামী লীগের ঐক্যের বিজয়' বলে উল্লেখ করেন তিনি বলেন, ‘গাজীপুরের জয়ে প্রমাণ হয়েছে আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে কিংবা আওয়ামী লীগ কোনও কিছু অর্জনের জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হলে কেউ বাধা দিয়ে থামিয়ে রাখতে পারে না।’

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের খণ্ডচিত্র তুলে ধরেন। উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার জন্য আওয়ামী লীগকে আবারও ক্ষমতায় আসার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। এজন্য দলে নবীন-প্রবীণের সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে শৃঙ্খলা বজায় রাখার প্রয়োজনীয়তা দেখছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

শনিবার গণভবনে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান ।

এরপর শনিবার দুপুরে গণভবনে আয়োজিত দলের বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে দেন শেখ হাসিনা। বর্ধিত সভার আজ ছিল দ্বিতীয় পর্যায়। এ পর্যায়ে উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী লীগের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা অংশ নেন।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জুন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, পৌর সভার মেয়র এবং পৌরসভা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে বিশেষ বর্ধিত সভা করে আওয়ামী লীগ।

তারই ধারাবাহিকতায় এবার ইউনিয়ন, পৌরসভা, ওয়ার্ড পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের নিয়ে এ সভা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। কিন্তু সারা দেশের তৃণমূল পর্যায়ের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে এক সঙ্গে এ সভা সম্পন্ন করা কষ্টসাধ্য বিবেচনা করে দু’টি ধাপে এই বিশেষ বর্ধিত সভা সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সেই সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৭ জুলাই শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় তৃণমূলের নেতা ও দলীয় ইউপি চেয়ারম্যানদের নিয়ে তৃতীয় ধাপের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও খুলনা বিভাগের ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং দলীয় ইউপি চেয়ারম্যানরা এতে অংশ নেবেন।

Comments

comments