বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীকে প্রকাশ্যে যৌন হয়রানি


প্রতিনিধি : কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠেছে। অভিযুক্তের নাম তাহমীদ পলাশ। তিনি নৃবিজ্ঞান বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে তিনি প্রকাশ্যে টাকার বিনিময়ে তার সাথে শারীরিক সম্পর্কে জড়াতে কু-প্রস্তাব দিয়েছেন।
যৌন হয়রানির শিকার ওই ছাত্রী আজ রোববার দুপুরে ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবরর লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, গত ০৮ ফেব্রুয়ারি  বৃহস্পতিবার বিকেলে নৃবিজ্ঞান বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী তাহমীদ পলাশ তাকে প্রকাশ্য দিবালোকে টাকার বিনিময়ে শারীরিক সম্পর্কে জড়াতে প্রস্তাব দেন। এমনকি তার সম্পর্কে খারাপ মনোভাব প্রকাশ করে কথা বলেন যেগুলো তিনি তার ব্যক্তিগত মোবাইলে রেকর্ড করে রাখেন।
অভিযোগ পত্রে তিনি আরও জানিয়েছেন, তাহমীদের এমন আচরণের কারণে তিনি এখন জনসম্মুখে আসতে পারছেন না। এবং তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোক্টরিয়াল বিভাগ থেকে জানা গেছে, ঘটনার পর গত ১৩ তারিখে উপরিউক্ত বিষয়াদি উল্লেখ করে ওই ছাত্রী নিজ বিভাগীয় প্রধান বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন। তবে ওই সময় থেকে এখনও পর্যন্ত অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। যার ফলে ওই ছাত্রী মানসিক বিপর্যস্ত হয়ে অতিমাত্রায় ঘুমের ঔষধ খেয়ে অসুস্থ হয়ে যায়। পরে তাকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (সিএমসিএইচ) ভর্তি করানো হয়। আজ রোববার তাকে কর্তব্যরত চিকিৎসক পর্যবক্ষণে রাখার শর্তে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেন।
এ বিষয়ে নৃবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি শামীমা নাসরীন বলেন,‘বিভাগ থেকে একাডেমিক সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে কমিটিকে ৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’
এদিকে অভিযোগ পেয়েছেন-স্বীকার করে কুবির প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন,‘আমরা (প্রক্টরিয়াল বডি) লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। উপাচার্যকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। ঘটনার সত্যতা যাচাই করে খুব দ্রুত এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Comments

comments