ব্রেকিং নিউজ

১৫ দিন আটকে রেখে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ


 যশোর প্রতিনিধি :

যশোরের চৌগাছায় এবার অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৪) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রাসেল (২৮) নামে এক গার্মেন্ট শ্রমিক ১৫ দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যশোর, ঢাকা ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়। উদ্ধারের পর শনিবার রাতে তাকে যশোর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
অভিযুক্ত রাসেল বিবাহিত। সে ঝিকরগাছা উপজেলার গুলবাগপুর গ্রামের আবু জাফরের ছেলে এবং চৌগাছার ডিভাইন গ্রুপের গার্মেন্ট কর্মী।

উল্লেখ্য, এর আগে গত বৃহস্পতিবার বেড়াতে নিয়ে গিয়ে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করে তার সহপাঠী রাব্বী। ওই ছাত্রীও যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।
কিশোরীর মা জানান, তার বাড়ির চারটি রুমের একটিতে রাসেল ভাড়া থাকত। ১৫ দিন আগে সে তা মেয়েকে বেড়ানোর নাম করে ফুসলিয়ে প্রথমে যশোর শহরের আবাসিক হোটেলে এবং পরে ঢাকা ও চট্টগ্রামে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। প্রথমে খুঁজে না পেয়ে রাসেলের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু সে মেয়েকে নিয়ে যায়নি বলে জানায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর শনিবার ঝিকরগাছা উপজেলার আটুলিয়া গ্রামে রাসেলের মামাবাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। ওই দিন দুপুরে ঘটনা চৌগাছা থানা পুলিশকে জানানো হয়। পরে চৌগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসক মেয়েকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করেন। এ বিষয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।
ওই ছাত্রী জানায়, রাসেলের সঙ্গে প্রতিদিন রাতে মোবাইলে কথা হতো। ১৪-১৫ দিন আগে পার্ক ও বাণিজ্যমেলায় নেওয়ার কথা বলে সে তাকে যশোর, ঢাকা এবং চট্টগ্রামে নিয়ে যায়। এ সময় সে তাকে কয়েকবার ধর্ষণ করে।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডের মেডিক্যাল অফিসার কানিজ ফাতেমা জানান, ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কিশোরীর শরীর থেকে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর বিস্তারিত জানা যাবে।
চৌগাছা থানার ওসি খন্দকার শামীম উদ্দিন জানান, লিখিত অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments

comments