কুমিল্লায় আদালতে বিচারককে হত্যার চেষ্টা

কুমিল্লা প্রতিনিধি :

কুমিল্লা নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের বিচারককে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে একই আদালতের পিপি ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে অপু। বৃহস্পতিবার দুপুরে জনাকীর্ণ আদালতে ছুরি নিয়ে সে ওই আদালতের বিচারক মো. আজীজ আহম্মেদ ভুঁইয়াকে হত্যা করতে যায়। এসময় ওই আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে প্রতিহত করতে গেলে সে দুইজনের উপর হামলা চালিয়ে তাদের আহত করে। পরে অপুকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের পেশকার মো. গোলাম রসুল বলেন, ওই আদালতের বিচারক যখন বিচার কাজে ব্যস্ত ঠিক তখন একটি ছুরি নিয়ে আদালতের এজলাসের কাছে ছুরি হাতে দাঁড়ায় অপু। এসময় সে অত্যন্ত উত্তেজিত ছিল।
তার হাতে ছুরি দেখে তাকে ধরতে গেলে আদালতের পেশকার মো. গোলাম রসুল, পিয়ন মহিউদ্দিনকে ঘুষি মেরে আহত করে। পেশকারের চোখ গুরুতর জখম হয়। এসময় তার পিতা পিপি ছিদ্দিকুর রহমান তাকে ধরতে গেলে পিতাকেও লাথি ও ঘুষি মেরে আহত করে মেঝেতে ফেলে দেয়। এর পরই সে ছুরি নিয়ে আদালতের বিচারককে হত্যার উদ্দেশ্যে এজলাসের দিকে দৌড় দিলে বিচারক পাশেই তার খাস কামরায় ঢুকে আত্মরক্ষা করেন। 
আদালতের পুলিশ আটক করতে গেলে পুলিশের উপরও হামলা চালায়। পরে তাকে আটক করে আদালতের হাজতে নিলে সেখানেও অন্য আসামীদের হামলা করে আহত করে সে। এরপর তাকে কুমিল্লা কোতোয়ালি থানা হাজতে নেয় পুলিশ। কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের ওসি মোহাম্মদ আবু ছালাম মিয়া জানান, তাকে বিকেলে অপুকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।
আদালতের পেশকার গোলাম রসুল আরো জানান, গত কয়েক মাস আগেও একবার আদালতের ছুরি নিয়ে ঢুকেছিল অপু। পিপির ছেলে বলে সে সময় তাকে আপস-রফার মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হয়। 
অপর একটি সূত্র জানায়, অপু শিক্ষানবিস আইনজীবী। তার উগ্র আচরণের কারণে তাকে শিক্ষানবিস আইনজীবীর কাজ করতে দেয়া হয় না। 

Comments

comments