চলতি বছরে প্রবাসী রেমিটেন্সে আসবে ১৪ বিলিয়ন ডলার- গভর্নর

প্রতিবেদক :

চলতি অর্থবছর শেষে প্রবাসী আয় এক হাজার ৪০০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

সোমবার জানুয়ারি-জুন মেয়াদের মুদ্রানীতি ঘোষণার অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, গত ২০১৬-১৭ অর্থবছরে রেমিটেন্স ১৪ শতাংশের মত কমে গিয়েছিল। এ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) সাড়ে ১২ শতাংশের মত বৃদ্ধি পেয়েছে। জানুয়ারি মাসের হিসাব যোগ হলে প্রবৃদ্ধি দাঁড়াবে ১৪ শতাংশের মত।

“আশা করছি রেমিটেন্সের এই ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকবে এবং বছর শেষে এটা ১৪ বিলিয়ন ডলারের বেশি হবে।”

বাংলাদেশ ব্যাংকের রেমিটেন্স সংক্রান্ত তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, অর্থবছরের প্রথমার্ধে অর্থাৎ জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে ৬৯৩ কোটি ২৩ লাখ ডলার প্রবাসীরা দেশে পাঠিয়েছেন।

সর্বশেষ ডিসেম্বর মাসে ১১৬ কোটি ৩৮ লাখ ডলারের রেমিটেন্স দেশে এসেছে, যা ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসের চেয়ে প্রায় ২২ শতাংশ বেশি।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে এক হাজার ২৭৬ কোটি ৯৫ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা, যা ছিল আগের বছরের চেয়ে ১৪ দশমিক ৪৮ শতাংশ কম।

গত অর্থবছর রেমিটেন্স কমে যাওয়ার পেছনে হুন্ডির মাধ্যমে টাকা লেনদেন বেড়ে যাওয়াকে দায়ী করে ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান বলেন, “হুন্ডির মাধ্যমে লেনদেন বেড়ে গেলে রেমিটেন্স কমে যায়। আগে হুন্ডিতে প্রচুর টাকা লেনদেন হত। এরই মধ্যে তিন হাজার অবৈধ মোবাইল একাউন্ট বন্ধ করা হয়েছে। তার ইতিবাচক ফল পাওয়া যাচ্ছে।”

প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রা ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে আনতে হুন্ডি ব্যবসায়ীদের অপতৎপরতা বন্ধে কেন্দ্রীয় ব্যাংক জোরালো কার্যক্রম অব্যহত রাখবে বলে জানান গভর্নর ফজলে কবির।

চলতি জানুয়ারি মাসের প্রথম ২৬ দিনে ১১৮ কোটি ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা, যা ডিসেম্বরের পুরো সময়ের চেয়ে দেড় শতাংশ বেশি।

Comments

comments