কোটালীপাড়া যুবলীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে নেতাদের জোর লবিং

গোপালগঞ্জ থেকে শেখ লিপন : প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দীর্ঘ ১৪ বছর পর তার নিজ নির্বাচনী এলাকা গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন হতে যাচ্ছে। সম্মেলনের দিনক্ষন এখনো নির্ধারন হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কোটালীপাড়া যুব নেতাদের মধ্যে শুরু হয়েছে নেতৃত্বে আসার প্রতিযোগিতা। ইতোমধ্যে প্রায় ডজন খানেক সাবেক তুখোড় ছাত্রলীগ নেতা লবিং গ্রুপিং শুরু করেছেন। সেই সাথে তৎপর হয়েছে অনেক নতুন মুখ। তাদের ব্যানার, পোষ্টার, বিলবোর্ডে কোটালীপাড়া উপজেলা সদর ছেয়ে গেছে। উপজেলা জুড়ে শুরু হয়েছে উৎসবের আমেজ।

যুবলীগের নেতৃত্বে আসতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বাবুল হাজরা ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম হাজরা মন্নু জোর তৎপরতা শুরু করেছেন। এই দু’নেতা আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে রয়েছেন। কোটালীপাড়া শেখ লুৎফর রহমান আদর্শ সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি হায়দার, শেখ কাইয়ুম হোসেনসহ প্রায় ডজন খানেক সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নেতৃত্বে আসতে দিন রাত নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও কাজী অমিত, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তুষার মধু, ব্যবসায়ী লাভলু শেখ, রেজাউল করিম, বুলবুল হাজরাসহ অনেক নতুন কমিটিতে স্থান পেতে মাঠে ময়দানে রয়েছেন।

অপরদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মৃনাল কান্তি বিশ্বাস স্বপ্নীল কোটালীপাড়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পদে প্রতিদন্দীতা করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

জানা গেছে, ২০০৪ সালে বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান হাজরাকে আহবায়ক করে যুবলীগের ১১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম হাজরা মন্নু বলেন, গত বৃহস্পতিবার আমিসহ কোটালীপাড়া উপজেলার বিভন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করি। এ সময় প্রধানমন্ত্রী যুবলীগসহ সহযোগী সকল সংগঠনের মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন। জাতির পিতার আদর্শের একজন সৈনিক ও জননেত্রী শেখ হাসিনার ভ্যানগার্ড হিসেবে মাঠে কাজ করছি। দীর্ঘ দিন পদ পদবী বিহীন অবস্থায় থেকেও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে অংশ নিয়ে আসছি। আশা করি সিনিয়র নেতৃবৃন্দ আমার কাজের মূল্যায়ন করে একটি সম্মান জনক পদ দিবেন।

উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য মাসুদ রানা বলেন, দীর্ঘ এক যুগের বেশী সময় ধরে আহবায়ক কমিটিতে আছি। আগামীতে যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে সেখানে আহবায়ক কমিটির ৫ নেতাসহ আমি একটি সম্মান জনক পদ পাবো। এমনটাই আশা করছি।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বাবুল হাজরা বলেন, দীর্ঘ এক যুগ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলাম। গত ২ বছর ধরে রাজনৈতিক কোন পদ পদবী নাই। তারপরও দলীয় কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণ করে যাচ্ছি। আশা করি দল মূল্যায়ন করবে। দীর্ঘ দিন পদ পদবী বিহীন রাজনীতিতে সক্রিয় সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদেরকে তিনি কমিটিতে অন্তভূক্ত করার দাবি জানান।

উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মতিয়ার রহমান হাজরা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নতুন কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন। দ্রুত সময়ের মধ্যে একটি যুব সমাবেশ করে আমরা কোটালীপাড়া যুবলীগের গ্রহণযোগ্য একটি নতুন কমিটি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দেব।


কাশিয়ানীতে সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা। জেলা প্রেসক্লাবের নিন্দা

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে সাংবাদিকের ওপর হামলা, ল্যাপটপ ও ক্যামেরা ছিনতাইয়ের ঘটনায় ৬ জনকে আসামী করে মামলা হয়েছে। রবিবার কাশিয়ানী উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও দৈনিক সমকালের কাশিয়ানী উপজেলা প্রতিনিধি সাদেক আহমেদ বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ আদালতে এ মামলা করেন।

মামলার আসামী হলেন উপজেলার রামদিয়া গ্রামের শফিক মোল্যা (৩০), রফিক মোল্যা (২৫), সাফায়েত আলী মোল্যা (৫০), ফুল মিয়া মোল্যা (৪৮), বেথুড়ী গ্রামের আব্দুল বারেক বিশ্বাস (৪০) ও নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলার ফকিরের চর গ্রামের ইয়াজুর ফকির (৩৯)।

মামলায় প্রকাশ, সাংবাদিক সাদেক আহমেদ পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে মোটর সাইকেল যোগে গোপালগঞ্জ শহর থেকে নিজ বাড়ী কাশিয়ানী উপজেলার সাধুহাটি গ্রামের ফেরার পথে কাশিয়ানী উপজেলার তালতলা-নড়াইলের মধ্যবর্তী স্থান নিজামকান্দি ব্রিজে পৌছালে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা শফিক মোল্যাসহ তার লোকজন সাংবাদিক সাদেকের মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে। এ সময় আসামীরা সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সাংবাদিক সাদেকের ওপর হামলা করে।

এ সময় সাংবাদিকের কাছে থাকা পেশাগত কাজে ব্যবহৃত ল্যাপটপ ও ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে যায় দূর্বৃত্তরা। স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যায়।

কাশিয়ানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আলীনুর হোসেন বলেন, মামলার অভিযোগের ভিত্তিতে আসামীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাংবাদিক সাদেকের উপর হামলার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন গোপালগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ। প্রতিবাদ লিপিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। অবিলম্বে দোষী ব্যাক্তিদের গ্রেফতারের দাবী জানান তারা।
 

Comments

comments