‘স্বামীর ধর্ম পালনে বাধ্য নন স্ত্রী’


আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
ভিন্ন ধর্মের দুই নর-নারীর বিয়ে হলে বিয়ের পর স্বামীর ধর্মবিশ্বাস পালন করতে কোনো নারীকে বাধ্য করা যায় না। এ ক্ষেত্রে স্ত্রী কোন ধর্ম পালন করবেন-তা তার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। 

শুক্রবার (০৮ ডিসেম্বর) স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে এমনটা জানানো হয়েছে। 

খবরে বলা হয়, এক পার্সি নারীর করা মামলায় ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে গঠিত পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ এ আদেশ দেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার (০৭ ডিসেম্বর) ওই আবেদনের রায় ঘোষণা দেন সুপ্রিম কোর্ট। 

রায়ে আদালত বলেন, আইনে কোথাও বলা নেই যে ভিন্ন ধর্মের দুইজনের বিয়ে হলে স্ত্রীকে স্বামীর ধর্ম পালন করতে হবে। কোনোভাবেই স্বামীর ধর্মীয় আচার পালন স্ত্রীকে বাধ্য করা যায় না। স্ত্রী কোন ধর্মীয় আচার পালন করবেন, সেটা একান্তই তার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, গুলরোখ এম গুপ্তা নামে এক পার্সি নারী একজন হিন্দু ধর্মাবলম্বীকে বিয়ে করেন। এরপর তাকে তার বাবা-মায়ের শেষকৃত্যে যোগ দিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে পার্সিদের সংগঠন ‘ভালসাদ জোরোয়াস্ট্রিয়ান ট্রাস্ট’। 

ওই সংগঠন থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, ভিন্ন ধর্মে বিয়ে করে গুলরোখ ধর্মচ্যুত হয়েছেন। এ কারণে তিনি তার মা-বাবার শেষকৃত্যে যোগ দিতে পারবেন না। 

মা-বাবার শেষকৃত্যে যোগ দিতে না পেরে ট্রাস্টের ওই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে মুম্বাই হাইকোর্টে আবেদন করেন গুলরোখ। কিন্তু মুম্বাই হাইকোর্ট ট্রাস্টের নিষেধাজ্ঞাই বহাল রাখেন। 

এরপর মুম্বাই হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানান গুলরোখ।

Comments

comments