কলেজ ছাত্রীর সাত টুকরো লাশ, দু’টি চাপাতি উদ্ধার

প্রতিবেদক:

বরগুনার আমতলীতে চাঞ্চল্যকর কলেজ ছাত্রী মালা আকতারকে সাত টুকরো করে হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আইনজীবি মাইনুল আহ্সান বিপ্লবের বাসা সংলগ্ন পুকুর থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দু’টি চাপাতি উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিপ্লবের কথিত মতে তার উপস্থিতিতে শনিবার দুপুরে এ চাপাতি উদ্ধার করা হয়। এ সময় তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি জব্দ করা হয়েছে।

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, কলেজ ছাত্রী প্রেমিকা মালা আকতারকে নিয়ে গত ২২ অক্টোবর সন্ধ্যায় প্রেমিক আলমগীর হোসেন পলাশ তার আত্মীয় আইনজীবি মাইনুল আহ্সান বিপ্লবের বাসায় বেড়াতে নিয়ে আসে। তিন দিন ধরে পলাশ ওই বাড়ীতে অবস্থান করে গত ২৪ অক্টোবর মালা পলাশকে বিয়ের জন্য চাপ দেয়। কিন্তু পলাশ এতে রাজি হয়নি। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে ঝগড়া ঝাটি হয়। এক পর্যায় ওইদিন দুপুরে আলমগীর হোসেন পলাশ মালা আকতারকে ধারালো অস্ত্র (বটি) দিয়ে জবাই করে হত্যা করে।

এরপর মালার দেহকে মাথা, দু’হাত, দু’পা, গলার নিচ থেকে কোমর পর্যন্ত দু’ টুকরো করে মোট সাত টুকরো করা হয়। ঐ সাত টুকরো লাশ ওই বাসার গোসলখানায় দুটি ড্রামে ভরে লুকিয়ে রাখে। এ ঘটনায় সাথে সম্পৃক্ত বাসার মালিক আইনজীবি মাইনুল আহ্সান বিপ্লবকে ওইদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে পুলিশ গ্রেফতার করে। আমতলী থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল ইসলাম বাদল বাদী হয়ে ঘাতক আলমগীর হোসেন পলাশ ও আইনজীবি মাইনুল আহ্সান বিপ্লবের নাম উল্লেখ করে চারজনের নামে ওইদিন হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

গত ২৫ অক্টোবর প্রেমিক ঘাতক আলমগীর হোসেন পলাশ আমতলী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ হুমায়ূন কবিরের আদালতে ঘটনার সম্পৃক্ততা স্বীকার করে জবানবন্দী দিয়েছেন। ওইদিন পুলিশ অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আইনজীবি মাইনুল আহ্সান বিপ্লব তালুকদারকে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক হুমায়ুন কবির রিমান্ড আবেদনের শুনানী শেষে গত ৩১ অক্টোবর পাঁচ দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

রিমান্ডে থাকা অবস্থায় শনিবার দুপুরে মাইনুল আহ্সান বিপ্লবের কথিত মতে তার উপস্থিতিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তার বাসার গোসলখানা সংলগ্ন পুকুর থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দুটি চাপাতি উদ্ধার করেছে। এ সময় তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি পুলিনের গ্যারেজ থেকে পুলিশ জব্দ করে। আইনজীবি মাইনুল আহসান বিপ্লব বলেন এ মোটর সাইকেলে করে মালা আক্তারকে ঘটনার দুইদিন আগে আমার বাসায় বেড়াতে নিয়ে আসি।

আমতলী থানার ওসি ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ শহিদ উল্যাহ জানান আসামী আইনজীবি মাইনুল আহসান বিপ্লবের স্বীকারোক্তি অনুসারে শনিবার দুপুরে বিপ্লবের উপস্থিতিতে তার বাসার গোসলখানা সংলগ্ন পুকুরে অভিযান চালাই। এ সময় ওই পুকুর থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দুটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো বলেন মালাকে আইনজীবি বিপ্লবের বাসায় বেড়াতে আনা তার মোটর সাইকেলটি জব্দ করেছি।

Comments

comments