আইন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন, ‘কোন বাংলাদেশি রোহিঙ্গাদের বিয়ে করতে পারবে না’


 প্রতিবেদক:
রোহিঙ্গা ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে বাংলাদেশিদের বিয়ে বন্ধে স্থানীয় নিকাহ রেজিস্ট্রারদের সতর্ক থাকতে নির্দেশ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন মন্ত্রণালয়। নিপীড়নের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা মেয়েদের সঙ্গে বাংলাদেশি ছেলেদের বিয়ে বেড়ে যাওয়ায় কক্সবাজারসহ তিন পার্বত্য জেলায় বিয়ে নিবন্ধনে আরও সতর্ক হওয়ার এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
বুধবার আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে ওই নির্দেশনার প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এতে বলা হয়েছে, বিয়ে নিবন্ধনের ক্ষেত্রে বর ও কনে দুজনেই বাংলাদেশের নাগরিক কিনা- জাতীয় পরিচয়পত্র দেখে তা নিশ্চিত করতে হবে কাজি বা নিকাহ রেজিস্ট্রারদের। এ ক্ষেত্রে গাফিলতি হলে দায়ী নিকাহ রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ‘কঠোর ব্যবস্থা’ নেয়া হবে।

মিয়ানমারে সেনা অভিযানের কারণে গত দুই মাসে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশের কক্সবাজার এবং তিন পার্বত্য জেলায় আশ্রয় নিয়েছে। তাদের একটি বড় অংশ নারী ও শিশু।
এর বাইরে আরও চার লাখ রোহিঙ্গা গত কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে ক্যাম্পে বসবাস করছে। রোহিঙ্গাদের অনেকে বিয়ে দেখিয়ে বা অন্য কোনোভাবে কাগজপত্র তৈরি করে বাংলাদেশের নাগরিকদের সঙ্গে মিশে যাওয়ার চেষ্টা করছে এবং কিছু বাংলাদেশি এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে বাণিজ্য করছে বলে পত্রিকায় খবর এসেছে। এরই প্রেক্ষিতে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এর আগে বলেছিলেন, কোন বাংলাদেশি নাগরিক মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাকে বিয়ে করতে পারবে না। রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি দেখিয়ে বিয়ে নিবন্ধন অবৈধ এবং তা করা হলে কাজিকে শাস্তি পেতে হবে।
বুধবার আইন মন্ত্রণালয়ের আদেশে বলা হয়, বাংলাদেশি ছেলেদের সাথে মিয়ানমার হতে আগত রোহিঙ্গা মেয়েদের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার প্রবণতা লক্ষণীয় হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় জাতীয় পরিচয়পত্র দেখে বর ও কনের পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার এই নির্দেশনা জারি করা হল।

Comments

comments