বিভাজনের রাজনীতি, ট্রাম্পের সমালোচনায় ওবামা-বুশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং জর্জ ডব্লিউ বুশ যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম উচ্চারণ না করেই তার নেতৃত্বের নিন্দাও জানিয়েছেন তারা। বারাক ওবামা মার্কিন নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, তারা যেন ‘বিভাজন’ ও ‘ভয়ের’ রাজনীতি ত্যাগ করে। অন্যদিকে মানুষের জীবনে ‘দাঙ্গা’ ও ‘বিদ্বেষ’ ঢুকিয়ে দেয়ার সমালোচনা করেছেন জর্জ ডব্লিউ বুশ।
বুশ ও ওবামা দু’জনেই আলাদাভাবে এ ধরনের বক্তব্য দিয়েছেন। এমনকি কেউই ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম উচ্চারণ করেননি। অবশ্য তাদের দু’জনেরই সমালোচনা করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ঐতিহ্যগতভাবেই সাবেক প্রেসিডেন্টরা যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করেন না। বারাক ওবামা তার কার্যালয় ছেড়ে আসার সময় বলেছিলেন, জর্জ ডব্লিউ বুশ তাকে যে আসন ছেড়ে দিয়ে গেছেন, তা তিনি একইভাবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের হাতে ছেড়ে দিয়ে যাচ্ছেন।
তবে ওবামাকেয়ার বাতিলের চেষ্টা, মুসলিমদের প্রবেশে বাধা ও প্যারিস চুক্তি থেকে সরে আসার ব্যাপারে ট্রাম্পের হঠকারী সিদ্ধান্তে নীরবতা ভেঙেছেন তিনি।
নিউইয়র্ক শহরের নিউ জার্সিতে ডেমোক্রেটিক দলের প্রচারণা অনুষ্ঠানে তিনি জানান, বিশ্ববাসীর কাছে মার্কিন নাগরিকদের এই বার্তা পাঠানো উচিৎ যে, বিভাজনের রাজনীতি আমরা প্রত্যাখ্যান করছি, ভয়ের রাজনীতি আমরা প্রত্যাখ্যান করছি।
যেসব রাজনীতি এখন দেখছি, সেগুলো আমরা অনেক আগেই বিছানায় রেখে এসেছি। অথচ তারা ৫০ বছর পিছনে ফিরে গেছে। এখন একবিংশ শতাব্দি, উনবিংশ শতাব্দি নয় বলেও মন্তব্য করেন ওবামা।
অন্যদিকে সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ বলেছেন, ‘বর্তমানে গোঁড়ামিকে উৎসাহ দেয়া হচ্ছে। আমাদের রাজনীতিকে অনেক বেশি ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে ষড়যন্ত্র তত্ত্ব ও সম্পূর্ণ মিথ্যা কথাগুলো। ওবামার ভাষণের মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে নিউ ইয়র্কে দেয়া বক্তব্যে তিনি এ ধরনের মন্তব্য করেন।
তিনি আরও বলেন, গণতন্ত্রকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়ার মতো কিছু লক্ষণ দেখা যাচ্ছে।
অথচ এই দু'জন রাজনীতিবিদ ট্রাম্পের রাজনীতির ব্যাপারে মন্তব্য করতে চাচ্ছিলেন না। গত বছর নির্বাচনের আগে বারাক ওবামা এবং ডব্লিউ বুশের ব্যাপক সমালোচনা করেন। তাদের দু'জনকে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ প্রেসিডেন্ট হিসেবে আখ্যা দেন ট্রাম্প।
এছাড়া ইরানের সঙ্গে ওবামার করা পরমাণু চুক্তিকেউ বাজে আখ্যা দিয়েছেন ট্রাম্প। তবে সে ব্যাপারে এখনও কোনো মন্তব্য করেননি ওবামা।
সূত্র : বিবিসি

Comments

comments