ব্রেকিং নিউজ

সরকারি অর্থায়নে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ৫০ হাজার ল্যাপটপ

laptop  
দ্য বিডি এক্সপ্রেস ডেস্কঃ
প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি-৩ (পিইডিপি) এর আওতায় আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ৫০ হাজার ল্যাপটপ ক্রয় করবে সরকার।
এ জন্য ব্যয় হবে ২৬১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। মোট আটটি লটে ৫টি প্রতিষ্ঠান ল্যাপটপগুলো সরবরাহ করবে বলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।
সরকার দেশে বিদ্যমান প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গমনোপযোগী সব শিশুর মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন তৃতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। ২০১১ সালের জুলাই থেকে ২০১৬ সালের জুন মেয়াদে এ কর্মসূচি গত ২০১১ সালের ৪ সেপ্টেম্বর একনেক বৈঠকে অনুমোদিত হয়। পরবর্তী সময়ে প্রথম সংশোধনীতে এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়।সূত্র জানায়, সরকারি অর্থায়নের পাশাপাশি বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগীর আর্থিক সহযোগিতায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। 
বর্তমানে দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ভিত্তিক ক্লাসরুম পরিচালিত হচ্ছে। একই সঙ্গে বিদ্যমান ৬০ হাজারের বেশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ই-লার্নিং ম্যাটেরিয়াল ভিত্তিক ক্লাসরুম পরিচালনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য ‘কম্পিউটার অ্যান্ড এক্সেসরিজ স্কুল’ কর্মসূচির অধীনে প্রাথমিক সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিতরণের জন্য কম্পিউটার, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ও সাউন্ড সিস্টেম ক্রয়ের সংস্থান রয়েছে।
মন্ত্রণালয় থেকে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হলে বিভিন্ন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান মোট ৮টি লটে ৩৯টি দরপত্র সংগ্রহ করে। 
প্রতিটি ল্যাপটপের প্রাক্কলিত দর ৫৩ হাজার টাকা। সে হিসাবে ৫০ হাজার ল্যাপটপের প্রাক্কলিত দর ২৬৫ কোটি টাকা। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি কর্তৃক ৫০ হাজার ল্যাপটপ ক্রয়ের জন্য কাস্টম ডিউটি, ভ্যাট ছাড়া মোট সুপারিশকৃত মূল্য ২৬১ কোটি ৮৫ লাখ ৯১ হাজার টাকা। যা প্রাক্কলিত দর থেকে ১ দশমিক ১৮ শতাংশ কম। এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাব খুব শিগগির সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে বলে সূত্র জানিয়েছে।

Comments

comments