ব্রেকিং নিউজ

ঘূর্ণিঝড়ে চট্টগ্রামে ১৪ জনের মৃত্যুঃ গাছ ভেঙে সীতাকুন্ডে মা-ছেলের মৃত্যু

siclon-557-thebdexpress

দ্য বিডি এক্সপ্রেস ডটকমঃ

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার গতিতে চট্টগ্রাম উপকূলে আঘাত হানে। শনিবার দুপুরের দিকে আঘাত হানা এ ঘূর্ণিঝড় উপকূলের সন্দ্বীপ, কুতুবদিয়া, সীতাকুণ্ডু, বাঁশখালী, আনোয়ারা লণ্ডভণ্ড করে দিয়ে যায়। 

আর এতে এখন পর্যন্ত ১৪ জন নিহত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে চট্টগ্রামের প্রশাসন। এরমধ্যে বাঁশখালীর সাতজন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন।

ঘূর্ণিঝড় প্রভাবে ঝড়ো বৃষ্টিতে সীতাকুণ্ডে ঘরের ওপরে গাছ ভেঙে পড়ে মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকেই দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টি হচ্ছে।শনিবার সকাল ভোরের দিকে সীতাকুণ্ডের জঙ্গল ছলিমপুরের কালাপানিয়া পাহাড়ের লোকমান কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ওই কলোনির বাসিন্দা রফিকের স্ত্রী কাজল বেগম (৫০) ও তার ছেলে বেলাল প্রকাশ আবু (১০)।সীতাকুণ্ডের কুমিরা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ইনচার্জ হারুন পাশা বাংলামেইলকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ আরো এগিয়েছে। এটি এখন পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছে। এটি আজ (শনিবার) দুপুরের মধ্যেই বরিশাল-চট্রগ্রাম উপকূলে আঘাত হানতে পারে। 

শনিবার (২১ মে) সকাল ৯টায় আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বুলেটিন ১৮-তে এ তথ্য জানানো হয়।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় জেলাসহ সারাদেশে প্রবল বৃষ্টিপাত হচ্ছে।

বাতাসের এ গতিবেগ ৯৫ থেকে ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক আবহাওয়া গবেষণা সংস্থা আক্কু ওয়েদার। বেলা পৌনে ১১টায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে সংস্থাটি বলেছে, রোয়ানুর প্রভাবে বৃষ্টিপাত হতে পারে ১৫০ থেকে ৩০০ মিলিমিটার পর্যন্ত। 

Comments

comments