ব্রেকিং নিউজ

বাংলাদেশে আমেরিকার জঙ্গিতত্ব !

দ্য বিডি এক্সপ্রেস ডটকমঃ

সৈয়দ মুশফিকুর রহমান।।বাংলাদেশে কথিত জঙ্গিগুষ্টি ‘আ্ইএস’ রয়েছে এমন আজগুবি ধারণার পিছনে বিশ্ব মোড়ল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নির্লজ্জভাবে সাফাই গেয়ে বলছে বাংলাদেশর একার পক্ষে জঙ্গিদমন সম্ভব নয়।এই বক্তব্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বুজানোর চেষ্টা করছে জঙ্গিদমনে তাকে সাথে নিলেই বাংলাদেশ থেকে জঙ্গীবাদ নির্মূল করা সম্ভব হবেে।আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ‘আইএস’ দমন করতে না পারলে বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়ার আশংকা করছে যুক্তরাষ্ট্র।আসলে জঙ্গিদমনের কথা বললেও দেশটি তার কৌশলগত স্বার্থের কারণে উল্টো সারাবিশ্বে জঙ্গিবাদকে মদদ্ যুগিয়ে আসছে। তার বাস্তব উদাহরণ্ আফগানিস্হান, ইরাক, সিরিয়া এবং লিবিয়া, জঙ্গি দমনের নামে সৈন্য পাঠিয়ে সন্ত্রাস দমনতো দূরের কথা উল্টো ঐসব দেশে জঙ্গীবাদকে প্রাতিষ্টানিক ভাবে প্রতিষ্টা করতে সহযোগিতা করছে দেশটি। বাংলাদেশ সরকার জঙ্গি দমনে ‘জিরো টলারেন্স’ অবস্হান গ্রহনের ফলে দেশে সন্ত্রাসী ও জঙ্গীবাদের হুমকি অনেকাংশে হ্রাস পেয়েছে। ঠিক তখনি দেশি বিদেশী ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তে জঙ্গিরা লুকানো গর্ত থেকে বেরিয়ে এসে নাশকতা সৃষ্টিকরে দেশকে অস্হিতিশিল করার চক্রান্তে আবারও মেতে উঠেছে। আর এই জঙ্গি গোষ্টির পিছনে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা কিছুদেশ প্রত্যক্ষ অথবা পরক্ষভাবে মদদ্ দেয়া অব্যাহত রেখেছে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যখন অর্থনৈতিক ও সামাজিক সূচকে দক্ষিন এশিয়ার অনেক দেশকে পিছনে ফেলে Massive Development-এ এগিয়ে যাচ্ছে তখনি ঈর্ষান্বীত হয়ে দেশি বিদেশী কিছু চিহ্নিত মহল উন্নয়নের ধারাকে বানচাল করার ষড়যন্ত্রে উঠেপড়ে লেগেছে।আর এই সকল চক্রান্তের পিছন থেকে কলকাঠি নাড়ছে পশ্চিমা দেশটি।

সকল দেশী-বিদেশী আন্তর্জাতিক সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে   দেশ যখন সুনিদিষ্ট লক্ষে এগিয়ে যাচ্ছে, ঠিক তখন চক্রান্ত আবার নতুন করে মাথা ঝাড়া দিয়ে উঠতে শুরু করেছে।মনে হচ্ছে আইনশৃংখলা বাহিনীর দূর্বলতার সুযোগে সারাদেশে জঙ্গিরা বেপরওয়া হয়ে উঠেছে। পুলিশ বাহিনীর ভিতর ছদ্মবেশে কোন অপরাধী ঢুকে পড়ছে কিনা তাও খতিয়ে দেখতে হবে? আইনশৃংখলা বাহিনীকে আরো পেশাদারী মনোভাব নিয়ে জঙ্গিদের সকল চক্রান্ত গুড়িয়ে দিতে হবে। তবে আইনপ্রয়েগকারী সংস্হাকে মনে রাখতে হবে জঙ্গিদমনের নামে কোনভাবেই যেন সাধারন মানুষের জানমালের ক্ষতি না হয় সে দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।বাংলদেশে আইএস জঙ্গির বায়বীয় অস্তিত্বের ‘জুজুর’ ভয় দেখিয়ে যুক্তরাষ্ট দেশকে অস্তিতিশীল করে দীর্ঘমেয়াদী ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে। 

কথিত ‘আইএস’জঙ্গি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল যুক্তরাষ্ট্রকে স্পষ্ট করে বলেছেন দেশে আইএসের কোন অস্তিত্ব নেই। তিনি জঙ্গি হামলার আগাম গোয়েন্দা তথ্য থাকলে তা দেওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ করেন। বর্তমান সরকার যখন উন্নয়নের রোডম্যাপে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন, ঠিক তখনই পরিকল্পিতভাবে গুপ্তহত্যাসহ  ভিন্ন আঙ্গিকে চক্রান্তের নীল নকশা শুরু করেছে স্বাধীনতা বিরোধী জঙ্গিগুষ্টির দোসর কিছু রাজনৈতিক দল। তাদের ষড়যন্ত্র এখন শুধু আওয়ামী লীগ-শেখ হাসিনার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। ষড়যন্ত্রের  তীর এখন ভবিষ্যত  নেতৃত্বের প্রতিও হুমকি সৃস্টি করেছে।

বাংলাদেশ সফরে এসে দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা  বিসওয়াল জানিয়েছেন, বাংলাদেশে বিভিন্ন হত্যাকাণ্ডের পর আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএস বা আল কায়েদার পক্ষ থেকে দায় স্বীকারের বিষয়টি তারা অবগত আছেন। বাংলাদেশের জঙ্গিদের সঙ্গে আন্তর্জাতিক জঙ্গিদের যোগাযোগ আছে বলেও যুক্তরাষ্ট্র মনে করে। নিশা বিসওয়ালের বক্তব্য দেখে মনে হচ্ছে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ‘আইএস’যুক্তরাষ্টের গোয়েন্দা সংস্হার আশ্রয়ে প্রশ্রয়ে বেড়ে উঠেছে।জঙ্গিরা কোথায় কখন নাশকতার চক্রান্ত করছে তা সবকিছু তারা ভালোভাবে অবগত।

সাংবাদিক, কলামিষ্ট

Mushfiqurrahman2021@gmail.com

 

Comments

comments