ব্রেকিং নিউজ

পাকিস্তানের বিপক্ষে আর খেলবে না ভারত!

imagesদ্য বিডি এক্সপ্রেসঃ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে আর কোনো ম্যাচ খেলবে না ভারত। এবারের বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলার আগে এমনই ঘোষণা দিয়েছিল ভারতের ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই।

আগের বিশ্বকাপগুলোতে পাকিস্তানের বিপক্ষে পাঁচ পাঁচটি ম্যাচে একক আধিপত্য বজায় রেখে জিতেছিল ভারত।এমনকি টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপেও দুদলের চারবার মুখোমুখি দেখায় সবগুলো ম্যাচেই শেষ হাঁসি হেঁসেছে ভারত। বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে হারই যেন নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে পাকিস্তানের কপালে।অথচ সার্বিক বিচারে পাকিস্তান ৭২-৫০ ম্যাচে এখনো এগিয়ে।

কিন্তু টুর্নামেন্টের আগে বিশ্বকাপ শব্দটি যুক্ত থাকলেই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামতে হাটু কাঁপে পাক বাহিনীর। তাই বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামা মানেই নিশ্চিত জয় ভাবে ভারত। আর এ জন্য তাদের সঙ্গে খেলতে নেমে খামোখাঁ দর্শকদের নাভিশ্বাস ও হার্টবিট বাড়ানোর কোনো মানে খুঁজে পাচ্ছে না বিসিসিআই।

রাগঢাক না রেখেই সংস্থাটি ঘোষণা দেয়, বিশ্বকাপের ওই ম্যাচের পর তারা পাকিস্তানের সঙ্গে বিশ্বেকাপে কোনো ম্যাচই খেলবে না। তাদের সঙ্গে খেলা মানে সময় নষ্ট করা। এর বেশি কিছু নয়।

গত ওই ম্যাচ শুরু হওয়ার আগে দর্শকদের উদ্দেশে এক সংবাদ সম্মেলনে বিসিসিআইয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ‘সবচেয়ে আলোচিত ভারত-পাকিস্তানের এই ম্যাচটি শেষবারের মতো দেখে নিন। আমরা আর কোনো দিন একে অন্যের বিপক্ষে মাঠে নামব না। এ ব্যাপারে আইসিসির (ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল) সঙ্গে যৌথসভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। ভবিষ্যতে পাকিস্তানের বিপক্ষে টসের পরই ভারতকে জয়ী দল হিসেবে ঘোষণা করা হবে। দর্শক শুধুমাত্র টস, ম্যাচ ও পিচ রিপোর্ট, আর ম্যান অব দ্যা ম্যাচের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানই দেখবেন। খেলা আর দেখা হবে না।’

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) ও দলটির খেলোয়াড়ারা ওই সিদ্ধান্তে জানপরানই নাকি খুশি হয়েছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া। তবে ওই ঘোষণায় পাকিস্তানি জঙ্গিগোষ্ঠী তালেবান না কি বিসিসিআই ও আইসিসির ওপর চেটেছে বেজায়। এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করলে এর ভয়াবহ পরিমাণ ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে তারা।     

তাহলে কি টানাটান উত্তেজনার পারদ ছড়ানো পাকিস্তান-ভারত ম্যাচ আর দেখা হবে না আমাদের? এই উত্তরটির জবাব পেতে হলে অবশ্যই আরো কিছু আমাদের অপেক্ষা করতে হবে।

তথ্যসূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

Comments

comments