ব্রেকিং নিউজ

সংলাপের উদ্যোক্তারা এক-এগারোর কুশীলব

দ্য বিডি এক্সপ্রেসঃ সুশীল সমাজের লোকজন সংলাপের জন্য দৌড় ঝাঁপ শুরু করলেও পেট্টোল বোমা হামলা নিয়ে কথা বলছেন না। বিশিষ্ট নাগরিকরা সংলাপ নিয়ে যতটা সরব,বোমা হামলা করে মানুষ মারার বিরুদ্ধে ততটাই নিরব। চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সংলাপের উদ্যোগ নিতে যাওয়া বিশিষ্ট নাগরিকদের ‘এক-এগারোর কুশীলব’ বলে মন্তব্য করা হয়েছে মন্ত্রিসভার বৈঠকে।
গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে নির্ধারিত আলোচনার পর বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে অনির্ধারিত আলোচনা হয়। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিশিষ্ট নাগরিকদের সংলাপ আয়োজনের উদ্যোগের সমালোচনা করা হয় বৈঠকে।
বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। তিনি বলেন, এক-এগারোর কুশীলবেরা সংলাপের এজেন্ডা নিয়ে মাঠে নেমেছেন।
বৈঠকে উপস্থিত কয়েকজন প্রথম আলোকে জানান, অনির্ধারিত আলোচনায় বলা হয়, সুশীল সমাজের কিছু লোক সংলাপ নিয়ে কথা বললেও দেশের বিভিন্ন স্থানে পেট্রলবোমা হামলায় সাধারণ মানুষের হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে কিছু বলছেন না। আগুন দিয়ে মানুষ পোড়ানোর বিষয়ে তাঁরা নীরব রয়েছেন।
এ সময় আরও বলা হয়, ড. কামাল হোসেন ও মাহমুদুর রহমান মান্নারা সম্প্রতি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এ সময় হরতাল-অবরোধের কারণে ১৫ লাখ পরীক্ষার্থী যে এসএসসি পরীক্ষা দিতে পারছে না, সে বিষয়ে তাঁরা কিছু বলেননি।
৭ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার নাগরিকের মতবিনিময় সভায় জাতীয় সংকট নিরসনে জাতীয় সংলাপের প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। এর আলোকে সংলাপের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসনকে নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে গতকাল চিঠি দেওয়া হয়েছে।
বিশিষ্ট নাগরিকদের ওই বৈঠক সম্পর্কে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু গত রোববার সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, ইদানীং বুদ্ধিজীবীরা কেউ কেউ একটু সরব হয়েছেন। কতিপয় বুদ্ধিজীবী সংলাপ নিয়ে যতটা সরব, আগুনে পুড়িয়ে মানুষ মারার বিরুদ্ধে ততটাই নীরব।

Comments

comments