ব্রেকিং নিউজ

সহিংসতায় যোগ দিচ্ছে চরমপন্থীরা

107776_1প্রতিবেদকঃ সরকারবিরোধী চলমান আন্দোলন সহসাই শেষ হচ্ছে না। বরং সহিংসতা যেকোনো সময় ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতে পারে। এ সহিংসতাকে বেগবান করার লক্ষ্যে উত্তর-দক্ষিণ অঞ্চল থেকে চরমপন্থী ও একাধিক জঙ্গী সংগঠনের সদস্য যোগ দিচ্ছে।

সহিংসতার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ২ হাজার ২৯৬ জন নেতাকর্মী কাজ করছে। এদিকে বড় ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য দেশের উত্তর-দক্ষিণ অঞ্চল থেকে মাছ ও সবজির ট্রাকে করে অস্ত্রের চালান ঢাকায় আনা হয়েছে বলে একটি বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলমান সহিংসতা প্রতিরোধ ও সরকারকে সজাগ করার জন্য এবং জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চরমপন্থী ও জঙ্গী সংগঠনের কার্যক্রমের তথ্য সম্পৃক্ত ২২১ পৃষ্ঠার একটি বিশেষ প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়।

আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে সোমবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পুলিশ সদর দফতরকে নির্দেশ দিয়েছে। একই সঙ্গে সরকারকে অবহতি করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধির জন্য গোয়েন্দা সংস্থার অফিসে পাঠানো হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমা গোয়েন্দা প্রতিবেদনটির তথ্য অনুসারে, ‘সরকার পতনের জন্য চলমান সহিংসতা আরও বেগবান করা হবে।

অবরোধের পর লাগাতার হরতাল ও অসহযোগ আন্দোলনের মধ্যে সহিংসতা করতে বিডিআর বিদ্রোহের পলাতক ও জামিনপ্রাপ্ত সদস্যদের মাধ্যমে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিসহ বিভিন্ন স্থানে বোমা হামলার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। দক্ষিণ অঞ্চল কেন্দ্রীক বিএনপির উচ্চপর্যায়ের এক নেতার মাধ্যমে চরমপন্থী সন্ত্রাসীদের সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে। রাজধানীর কারওয়ান বাজার এলাকায় বেশ কয়েকজন চরমপন্থী সদস্যদের দেখা গেছে।

ডিসেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে কারওয়ান বাজার এলাকার ৩-৪টি ট্রাকে মাছ, সবজির সঙ্গে অস্ত্রের চালান এসেছে।’ ‘সরকার পতনের মরণ কামড়’ উল্লেখ করে প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়েছে, ৫ জানুয়ারি থেকে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার পতনের আন্দোলনের চূড়ান্ত ধাপ শুরু করেছে।

এবারের আন্দোলনের প্রধান টার্গেটে রয়েছে রাজধানী ঢাকা। ঢাকাকে অবরোধ ও হরতালের সময় দেশের অন্য জেলাগুলোর সঙ্গে বিচ্ছিন্ন রাখা। একই সঙ্গে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে হামলা চালিয়ে জনমনে ও সরকারের প্রশাসনিক কাঠামো দুর্বল করে রাখবে। প্রয়োজনে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে।

Comments

comments